৫ মাঘ  ১৪২৬  রবিবার ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এক সপ্তাহের মধ্যে তিনবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল দিল্লিতে। গত সপ্তাহ দিল্লির আনাজ মাণ্ডি এলাকায় আগুন লাগে। তারপর আগুন লাগে কিরারি মার্কেটে। এবার অগ্নিকাণ্ড দিল্লির পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা এলাকায়। শনিবার সকালে আচমকাই এলাকার একটি গোডাউনে আগুন লাগে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে দমকলের ২১টি ইঞ্জিন। আগুন নেভানোর চেষ্টা চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, শনিবার ভোর ৫টা নাগাদ পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা এলাকার একটি গোডাউন থেকে তাঁরা কালো ধোঁয়া বেরোতে দেখেন। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় দমকলে। ঘটনাস্থলে পৌঁছন দমকলকর্মীরা। তবে তার আগে স্থানীয়রাই আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে দেন। উদ্ধার করা হয় গোডাউনে আটকে পড়া কয়েকজনকে। দমকলের প্রায় ২১টি ইঞ্জিন আগুন নেভানোর চেষ্টা শুরু করেছে। যদিও আগুন এখনও নেভানো সম্ভব হয়নি। আগুন আয়ত্ত্বে আনতে আরও সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন দমকলকর্মীরা। তবে স্থানীয়দের তৎপরতায় আগুন ছড়িয়ে পড়তে পারেনি বলে দমকলের তরফে জানানো হয়েছে। ঘটনায় এখনও কোনও হতাহতের খবর মেলেনি। তবে কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা আগুন নিভে যাওয়ার পরই জানা যাবে। ঘটনাস্থল খতিয়ে দেখতে মুন্ডকা এলাকায় পৌঁছেছে পুলিশও।

[ আরও পড়ুন: অর্থনীতির বেহাল দশা, এবার দেশের বাইরেও প্রতিবাদ করবে কংগ্রেস ]

গত মঙ্গলবার আগুন লাগে দিল্লির কিরারি মার্কেটের আসবাবপত্রের বাজারে। কাঠের আসবাবপত্রের জন্য আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আগুন ধরে যায় পরপর কয়েকটি গুদাম ও দোকানে। ঘটনাস্থলে পৌঁছন দমকলকর্মীরা। দমকলের ৮টি ইঞ্জিন কয়েকঘণ্টার প্রচেষ্টায় আগুন নেভাতে সমর্থন হয়। ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। তার আগে, গত রবিবার ভোরবেলা দিল্লির আনাজ মান্ডি এলাকার চারতলা একটি বাড়িতে আগুন লাগে। দমকলের মোট ৩০টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যু হয় অন্তত ৪৩ জনের। বিল্ডিংয়ের ভিতর থেকে উদ্ধার করা হয় ৫০ জনেরও বেশি বাসিন্দাকে। আহতদের নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। এই ঘটনার ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ওই একই বিল্ডিংয়ে ফের আগুন লাগে। তবে দ্বিতীয়বারের এই আগুন লাগার ঘটনায় তেমন কোনও ক্ষতি হয়নি। 

[ আরও পড়ুন: রাজ্য চাইলেও CAB আটকাতে পারবে না, সাফ জানিয়ে দিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং