২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

করোনা আক্রান্ত মহারাষ্ট্রের আরও এক মন্ত্রী, আশঙ্কা মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যদের নিয়ে

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 25, 2020 10:37 am|    Updated: May 25, 2020 10:37 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এবার করোনায় আক্রান্ত দেশের আরও এক প্রথম সারির রাজনীতিবিদ। সংক্রমিত হলেন মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা অশোক চবন (Ashok Shankarrao Chavan)। মহারাষ্ট্রের বর্তমান মন্ত্রিসভাতেও গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকায় আছেন তিনি। এ হেন মন্ত্রী সংক্রমিত হওয়ায় মন্ত্রিসভার অন্য  সদস্যদের নিয়েও বাড়ছে আশঙ্কা।

অশোক চবন ২০০৮ থেকে ২০১০ পর্যন্ত মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে ছিলেন। আদর্শ হাউসিং কেলেঙ্কারির অভিযোগে তাঁকে কুরসি ছাড়তে হয়। পরে অবশ্য ওই মামলা থেকে ক্লিনচিট পান অশোক। এবছর শিব সেনা-কংরেস-এনসিপি সরকারের পূর্ত দপ্তরের দায়িত্ব পান অশোক। করোনা আবহেও ‘মানুষের পাশে দাঁড়াতে’ বেশ কয়েকবার মুম্বই থেকে নিজের এলাকায় যাতায়াত করেছেন তিনি। সংবাদসংস্থা পিটিআই সূত্রের খবর, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। আপাতত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। এই প্রথম নয়, এর আগে উদ্ধব মন্ত্রিসভার আরেক গুরুত্বপূর্ণ সদস্য জীতেন্দ্র আওয়াধও করোনা সংক্রমিত হন। প্রায় দু’সপ্তাহ চিকিৎসার পর সুস্থ হয়েছেন তিনি। মন্ত্রিসভার দুজন সদস্য সংক্রমিত হওয়ায় বাকি সদস্যদের নিয়েও আশঙ্কায় চিকিৎসকরা। তবে স্বস্তির কথা, করোনা আবহে দীর্ঘদিন মন্ত্রিসভার সদস্যরা সশরীরে হাজির থেকে বৈঠক করেননি। বেশিরভাগ বৈঠকই হয়েছে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে। 

[আরও পড়ুন: পালঘরের পর নান্দেদ, গলায় চার্জারের তার জড়িয়ে মহারাষ্ট্রে ২ সাধুকে খুন]

করোনায় দেশের মধ্যে সবচেয়ে বিপজ্জনক পরিস্থিতি মহারাষ্ট্রে। প্রশাসনিক ব্যর্থতার কারণেই হোক, কিংবা জনগণের অসচেতন আচরণের জন্যই হোক, মহারাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণে কিছুতেই লাগাম লাগানো যাচ্ছে না। ইতিমধ্যেই রাজ্যে সংক্রমিতের সংখ্যা ৫০ হাজার টপকে গিয়েছে। দেশের মোট সংক্রমিতের একটা বড় অংশ মহারাষ্ট্রের বাসিন্দ। খোদ মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের পাড়া দীর্ঘদিন ছিল রেড জোনে। মুম্বই শহরের বেশিরভাগ এলাকাই রেড জোনে। এখনও পর্যন্ত গোটা শহরে কঠোরভাবে লকডাউন জারি রেখেছে রাজ্য সরকার। কিন্তু তা সত্বেও মাঝেমাঝেই মুম্বই থেকে নিজের এলাকা মারাঠাওয়াড়া যেতেন। আর সেটাই তাঁর সংক্রমিত হওয়ার কারণ হতে পারে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement