২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

দু’সপ্তাহের লড়াই শেষ, মৃত্যু উত্তরপ্রদেশে গণধর্ষণ এবং নৃশংস নির্যাতনের শিকার দলিত যুবতীর

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 29, 2020 11:17 am|    Updated: September 30, 2020 9:45 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের বিকৃতকামী অসামাজিক দুষ্কৃতীর লালসার শিকার হল তরতাজা প্রাণ। দুসপ্তাহের লড়াই শেষ। মৃত্যু হল উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে গণধর্ষণ এবং নৃশংস শারীরিক নির্যাতনের শিকার দলিত যুবতীর। মঙ্গলবার সকালে দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে লড়াই শেষ হয় তাঁর।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাস জেলার ওই দলিত যুবতী ধর্ষণ এবং নৃশংসতার শিকার হন। সেদিন মা এবং ভাইয়ের সঙ্গে মাঠে ফসল কাটতে গিয়েছিলেন বছর কুড়ির ওই দলিত যুবতী। কিছুক্ষণ বাদে ফসলের বোঝা মাথায় নিয়ে বাড়ি ফিরে যান নির্যাতিতার ভাই। তখনও মা-মেয়ে বাজরার খেতেই ছিলেন। দুজন দু’প্রান্তে ফসল কাটছিলেন। হঠাত করে চার-পাঁচ জন দুষ্কৃতী আসে। তরুণীর গলায় তাঁরই ওড়না পেঁচিয়ে দেয় তারা। তারপর টেনে হিঁচড়ে তাঁকে সেখান থেকে নিয়ে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর মেয়েকে দেখতে না পেয়ে সন্ধান করা শুরু করেন মা। কিছুটা দূরে মেয়েটিকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়।নির্যাতিতার পরিবারের দাবি, এ হেন নৃশংসতার পরও নাকি পুলিশ ৪-৫ দিন চুপ ছিল। যদিও পরে চার অভিযুক্তকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই চারজনই তথাকথিত উচ্চবর্ণের পরিবারের সদস্য।

[আরও পড়ুন: আশার আলো! দেশে একধাক্কায় অনেকটা কমল দৈনিক করোনা আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা]

অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করার পর নির্যাতিতাকে প্রথমে স্থানীয় এক সরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভরতি করা হয়। কিন্তু সেখানে তাঁর অবস্থার অবনতি হওয়া শুরু করে। চিকিৎসকরা জানান, তাঁর শরীরে আঘাতের চিহ্ন স্পষ্ট। একাধিক হাড় ভাঙা, গোটা শরীরে ক্ষতচিহ্ন। ধর্ষণেরও প্রমাণ মিলেছে। গতকাল নির্যাতিতাকে স্থানান্তর করা হয় দিল্লির সফদরজং হাসপাতালের আইসিইউতে। আজ সকালে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। হাথরাসের এই গণধর্ষণের পর উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা নিয়ে এমনিই প্রশ্ন উঠছিল। নির্যাতিতার মৃত্যু আরও খানিকটা অস্বস্তিতে ফেলল সেরাজ্যের সরকারকে। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement