BREAKING NEWS

১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘চিনের সমর্থনেই কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা ফিরবে’, ফারুক আবদুল্লার মন্তব্যে বিতর্ক

Published by: Paramita Paul |    Posted: October 11, 2020 4:57 pm|    Updated: October 11, 2020 5:36 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিনের সমর্থনে কাশ্মীর তার হারানো মর্যাদা ফিরে পাবে। রবিবার এক জাতীয় বৈদ্যুতিন সংবাদমাধ্যকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনই দাবি করলেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা। তাঁর মতে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় (LAC) চিনা আগ্রাসনের মূল কারণ ৩৭০ ধারা বিলোপ। অর্থাৎ কাশ্মীর বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেওয়ার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তই চিনকে প্ররোচিত করেছে বলে দাবি ফারুক আবদুল্লার।

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা (Article 370) ও ৩৫এ ধারার অবলুপ্তি ঘটায় কেন্দ্রের এনডিএ সরকার। ফলে ভূস্বর্গ তার বিশেষ মর্যাদা হারায়। কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের ফলে জম্মু একটি এবং কাশ্মীর ও লাদাখ মিলে আরেকটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেন কাশ্মীরের একাধিক রাজনৈতিক নেতারা। এদিন কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে গ্রহণযোগ্য নয় বলে মত প্রকাশ করেছেন ফারুক আবদুল্লা।

[আরও পড়ুন : নন-বুলেটপ্রুফ ট্রাকে জওয়ানরা! রাহুলের পোস্ট করা ভিডিও’র সত্যতা যাচাই করবে CRPF]

বৈদ্যুতিন সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জানান, “কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত ওরা (চিন) কোনওদিন মেনে নেয়নি। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় ওরা যা করছে তার মূলে রয়েছে ৩৭০ ধারার বিলোপ। আশা করি, ওঁদের (চিন) সাহায্যেই কাশ্মীরে ফের ৩৭০ ধারা ফিরবে।” এদিনের সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও একহান নেন ফারুক। বলেন, “আমি চিনের প্রেসিডেন্টকে আমন্ত্রণ জানাইনি। প্রধানমন্ত্রী ওঁকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। চেন্নাই নিয়ে গিয়ে একসঙ্গে খাবার খেয়েছেন।” তাঁর আরও অভিযোগ, সংসদের বাদল অধিবেশনে তাঁকে কাশ্মীরের মানুষের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে কথা পর্যন্ত বলতে দেওয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা নিয়ে আগেই উষ্মা প্রকাশ করেছে চিন। চিনের সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদ মাধ্যম গ্লোবাল টাইমসকে বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন জানিয়েছেন, “চিন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে লাদাখকে (Ladakh) মান্যতা দেয় না। ভারত বেআইনিভাবে এটিকে কেন্দ্রশাসিত (UT) অঞ্চলে পরিণত করেছে।” এমন পরিস্থিতিতে কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এমন মন্তব্য বিতর্ক আরও বাড়াবে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

[আরও পড়ুন : ‘ধর্ষককে ভোটের টিকিট কেন?’ প্রশ্ন করতেই মহিলা নেত্রীকে মার কংগ্রেস কর্মীদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement