BREAKING NEWS

১৭ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  রবিবার ৩১ মে ২০২০ 

Advertisement

বেসরকারি চাকরিতে ভূমিপুত্রদের জন্য ৭৫ শতাংশ সংরক্ষণ, নজির গড়ল অন্ধ্রপ্রদেশ!

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: July 23, 2019 1:53 pm|    Updated: July 23, 2019 1:53 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকারি চাকরির পাশাপাশি এবার বেসরকারি চাকরিতেও চালু হল সংরক্ষণ। কোনও জাতপাত বা আর্থিক বৈষম্যের ভিত্তিতে নয়, এই সংরক্ষণ করা হল শুধুমাত্র ভূমিপুত্রদের জন্য। নজির তৈরি করে দেশের প্রথম রাজ্য হিসেবে এই ধরনের সংরক্ষণ চালু করল অন্ধ্রপ্রদেশ সরকার। এর ফলে এখন থেকে রাজ্যে অবস্থিত সমস্ত বেসরকারি সংস্থা ও কারখানার ৭৫ শতাংশ চাকরি স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য সংরক্ষিত রাখা হবে।

[আরও পড়ুন- চন্দ্রযান-২ অবতরণের শেষ ধাপের ১৫ মিনিট নিয়ে আতঙ্কিত ইসরো]

সোমবারই এই সংক্রান্ত অন্ধ্রপ্রদেশ এমপ্লয়মেন্ট অফ লোকাল ক্যান্ডিডেটস ইন ইন্ড্রাস্ট্রি/ফ্যাক্টরিস অ্যাক্ট, ২০১৯ পাশ হয় অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভায়। ক্ষমতায় আসার আগে এই বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ওয়াই এস জগনমোহন রেড্ডি। ক্ষমতায় আসার দু’মাসেরই মধ্যে তা পূরণ করলেন তিনি।

বিধানসভায় পাশ হওয়া নতুন আইন অনুযায়ী, সরকারি ও বেসরকারি যৌথ অংশীদারিত্বে যে কারখানাগুলি চলছে, তাদেরও এই নিয়ম মানতে হবে। শুধুমাত্র পেট্রোলিয়াম, ওষুধ উৎপাদন, কয়লা, সার এবং সিমেন্টের মতো কিছু ক্ষেত্রে আবেদন ভিত্তিতে এই আইনের আওতা থেকে ছাড় দেওয়া হতে পারে। তবে বর্তমানে যে কারখানা বা প্রকল্প পিপিপি মডেলে চলছে, সেখানে এই নিয়ম কার্যকরী হবে না৷ আইন লাগু হওয়ার পর নতুন করে যেগুলি চালু হবে, তার উপরেই জারি করা হবে নতুন নিয়ম৷ এই আইনে আরও বলা হয়েছে, স্থানীয়দের মধ্যে যোগ্য ব্যক্তি পাওয়া না গেলে রাজ্যের সাহায্যে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। সেখান অদক্ষদের প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ বানাতে হবে। তারপর কোম্পানিতে নিয়োগ করতে হবে। সব সংস্থাকে তিন বছরের মধ্যে এই আইন মেনে কাজ করতে হবে।

[আরও পড়ুন- সম্প্রীতির নজির কানপুরে, শ্রাবণের সোমবারে ভক্তদের দুধ ও ফলদান মুসলিমদের]

অনেকদিন ধরেই বেসরকারি চাকরিতে স্থানীয়দের জন্য সংরক্ষণের কথা ভাবছে দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্য। সেই তালিকায় রয়েছে মধ্যপ্রদেশ, কর্ণাটক, গুজরাট ও মহারাষ্ট্র। কিন্তু, কেউই এখনও পর্যন্ত অন্ধ্রের মতো আইন প্রণয়ন করেনি। আর আমাদের রাজ্যে তো এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনও আলোচনাই হয়নি! আইন পাশের বিষয়টি তো অনেক দূরের বিষয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement