১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  শনিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘আমরা ভাগ্যবান, মোদির জন্যই এই দিনটা পেলাম’, অয্যোধ্যায় দীপোৎসবে আবেগপ্রবণ যোগী

Published by: Biswadip Dey |    Posted: November 14, 2020 9:31 am|    Updated: November 14, 2020 11:48 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এত বছরের অন্যায় ও অপমানের পর এবার অযোধ্যা তার কাঙ্ক্ষিত পথে যাত্রা শুরু করেছে। সে এবার পৃথিবীর সবথেকে সুন্দর ও শ্রেষ্ঠ শহর হওয়ার অপেক্ষায়। শুক্রবার দিওয়ালির আগে অযোধ্যায় (Ayodhya) দীপোৎসব শুরুর মুহূর্তে এই কথা জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath)। পাশাপাশি অতিমারীর সময়ও মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু করতে পারার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (PM Modi) প্রশংসাতেও পঞ্চমুখ হতে দেখা গেল তাঁকে। দীপোৎসবের রঙিন উদযাপনের প্রেক্ষাপটে আরও একবার যেন সেই চেনা রাজনীতির রংও দেখা গেল অযোধ্যায়।

রাম মন্দিরের (Ram Mandir) ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পরে এই প্রথম দীপোৎসব অযোধ্যায়। সাড়ে পাঁচ লক্ষেরও বেশি প্রদীপ জ্বলে উঠতে দেখা গিয়েছে সরযূ নদীর ধারে। যা নয়া বিশ্বরেকর্ড। সেই উপলক্ষে বক্তব্য রাখতে গিয়ে যোগী বলেন, ‘‘এই বছরটা আমাদের কাছে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। লক্ষ লক্ষ মানুষ তাদের জীবন কাটিয়ে দিয়েছেন রাম মন্দিরের আশায়। শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্য। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে অযোধ্যাকে অপমানিত হতে হয়েছে। কিন্তু এখন তাকে তার সঠিক পরিচয় ফিরিয়ে দিতে আর দেরি হবে না। আমাদের প্রজন্ম সৌভাগ্যবান, কেননা প্রধানমন্ত্রী মোদির জন্য এই দিনটা আমরা দেখতে পেলাম। শুরু হয়েছে মন্দির নির্মাণের কাজ।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘রাম মন্দির নির্মাণ করতে পাঁচটা শতাব্দী লেগে গেল।’’

[আরও পড়ুন: অক্সফোর্ডের করোনা টিকার ৪ কোটি ডোজ তৈরি, বড় ঘোষণা সেরাম ইনস্টিটিউটের]

প্রসঙ্গত, এর আগে গত সপ্তাহেই যোগী সরকারের তরফে এক বিবৃতিতেও এই সুর ছিল। সেখানে বলা হয়েছিল, ‘‘৪৯২ বছর পরে আনন্দের প্রদীপ জ্বলবে শ্রীরাম জন্মভূমিতে।’’ আগে লোকে অযোধ্যায় আসার কথা ভাবলে ভয় পেত বলেও এদিন জানান যোগী। এমনকী, তিনি ক্ষমতায় আসার সময়ও পরিস্থিতি তেমনই ছিল। তাঁর কথায়, ‘‘লোকেরা জানতে চাইত আমি কি অযোধ্যা সফরে আসব? আমি তাদের বলতাম, কেন আসব না? আর আজ গোটা পৃথিবী অযোধ্যায় আসতে চায়।’’

অযোধ্যাকে সারা বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে চাওয়ার এই আকাঙ্ক্ষার মধ্যেই যোগীর রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষাও যেন খুঁজে পাচ্ছে ওয়াকিবহাল মহল। নিজের হিন্দুত্বের ইমেজকে বজায় রাখতে সদা সতর্ক থাকেন যোগী। এমনিতেও ২০১৭ সালে যখন তিনি মুখ্যমন্ত্রী হন, সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ভোটের ফলপ্রকাশের পরে। উত্তরপ্রদেশের সিনিয়র বিজেপি নেতাদের অনেকেই ক্ষুণ্ণ হয়েছিলেন আরএসএসের ছায়াধন্য যোগী মসনদে বসায়। দেখতে দেখতে ৩ বছর কেটে গিয়েছে। ২০২২ সালে ভোট। মনে করা হচ্ছে নারী নির্যাতন, গুন্ডারাজ যেভাবে উত্তরপ্রদেশে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে, সেটাকে সরিয়ে দ্বিতীয়বার মুখ্যমন্ত্রিত্বের গদিতে বসতে হিন্দুত্বের তাসই খেলে যেতে চান জাতীয় রাজনীতিতে বিজেপির উদীয়মান তারকা যোগী আদিত্যনাথ। শুক্রবারের বক্তব্যেও সেই সুরই যেন প্রতিফলিত হল।

[আরও পড়ুন: ৩ দশক আগে রাম মন্দিরের ইট পুঁতেছিলেন, সেই দলিত নেতাই হতে পারেন বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী!]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement