BREAKING NEWS

২৬  শ্রাবণ  ১৪২৯  সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ট্রলির অভাব, চাদরে শুইয়ে মেঝেতে টানতে টানতে এক্স-রে রুমে পৌঁছল রোগী

Published by: Sayani Sen |    Posted: June 30, 2019 4:04 pm|    Updated: June 30, 2019 4:04 pm

Jabalpur hospital staff drags patient for X-Ray on bed sheet

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ট্রলি নেই৷ তাই বাধ্য হয়েই শয্যাশায়ী এক রোগীকে বিছানার চাদরে শুইয়ে টানতে টানতে এক্স-রে রুমে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠল হাসপাতালের এক কর্মীর বিরুদ্ধে। চিকিৎসাব্যবস্থার কঙ্কালসার পরিস্থিতির সাক্ষী মধ্যপ্রদেশের জবলপুরের নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু হাসপাতাল৷ ঘটনার ভিডিও মুহূর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়ে নেটদুনিয়ায়৷ ওই ভিডিও নজর এড়ায়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষেরও৷ এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত হাসপাতালের তিন কর্মীকে সাসপেন্ড করা হয়েছে৷

[আরও পড়ুন: দ্বিতীয় ইনিংসের প্রথম ‘মন কি বাত’, জল সংরক্ষণেই জোর মোদির]

ওই ভিডিওয় দেখা গিয়েছে, হাসপাতালের মেঝেয় শুয়ে রয়েছেন রোগী। তিনি নড়াচড়া করতে পারেন না৷ উঠে বসার ক্ষমতাটুকুও নেই তাঁর। এক কথায় একেবারেই শয্যাশায়ী। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওই রোগীর এক্স-রে করানোর প্রয়োজন হয়৷ হাসপাতালের এক কর্মীর উপরেই ভার দেওয়া হয় রোগীকে এক্স-রে রুমে পৌঁছে দেওয়ার৷ হাতের কাছে ট্রলি পাননি৷ তাই বাধ্য হয়ে যে চাদরের উপরে শুয়ে ছিলেন, সেটারই একদিক ধরে টানতে শুরু করেন হাসপাতাল কর্মী। টানতে টানতে হাসপাতালের এক্স-রে রুমে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে৷ রোগীর পিছু পিছু যাচ্ছিলেন এক আত্মীয়ও৷ হাসপাতালে ট্রলির মতো বেডেরও যে অভাব রয়েছে, তা ধরা পড়ে ভিডিওয়৷ কারণ ওই ভিডিওতে বহু রোগীকে হাসপাতালে মেঝেতে শুয়ে থাকতেও দেখা গিয়েছে৷

[ আরও পড়ুন: দুর্নীতি রুখতে পদক্ষেপ, দ্রুত ‘এক দেশ এক রেশন কার্ড’ চালুর উদ্যোগ মোদি সরকারের]

ইন্টারনেটের দৌলতে এই ভিডিও ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগেনি৷ ওই ভিডিও দেখার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, রোগীকে এক্স-রে রুমে নিয়ে যাওয়ার সময় অতিরিক্ত ট্রলি ছিল না। তাই বাধ্য হয়েই রোগীকে চাদরে শুইয়ে টেনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাফাই শুনতে নারাজ সাধারণ মানুষ৷ ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখে সমালোচনায় সরব নেটিজেনরা৷ চাপের মুখে কিছুটা হলেও নতিস্বীকার করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ ইতিমধ্যে এই ঘটনায় যুক্ত তিন কর্মীকে সাসপেন্ড করেছেন হাসপাতালের ডিন নভনীত সাক্সেনা৷ ঘটনার তদন্তের আশ্বাসও দিয়েছেন তিনি।

 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে