BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

লকডাউনের মধ্যেই পুণ্যার্থীদের কেদারনাথ যাত্রার অনুমতি দিচ্ছে উত্তরাখণ্ড সরকার!

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 2, 2020 1:12 pm|    Updated: May 2, 2020 1:12 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মন্দিরের দরজা আগেই খুলে দেওয়া হয়েছিল। এবার পুণ্যার্থীদেরও কেদারনাথ (Kedarnath) মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেবে উত্তরাখণ্ডের বিজেপি সরকার। এক বেসরকারি সংবাদমাধ্যমের সমাবেশে গিয়ে উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র রাওয়াত (Trivendra Singh Rawat) জানিয়েছেন, ৪ মে অর্থাৎ সোমবার থেকেই উত্তরাখণ্ডের যাত্রীদের কেদারনাথ মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। তবে ভিনরাজ্যের পুণ্যার্থীদের এখনই কেদারনাথ মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।

উল্লেখ্য, করোনার প্রভাবে আপাতত দেশের সমস্তরকম ধর্মীয় সমাবেশ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। বিশেষ করে দিল্লির নিজামুদ্দিনের ঘটনার পর আরও সাবধান হয়ে গিয়েছে কেন্দ্র। শুক্রবার লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধি করে যে নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে তাতেও গ্রিন, রেড এবং অরেঞ্জ তিন জোনেই আগামী ১৭ মে পর্যন্ত ধর্মীয় সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তা সত্বেও ৪ মে থেকে কেদারনাথ যাত্রার অনুমতি দিতে চলেছে উত্তরাখণ্ড প্রশাসন। সরকারের দাবি, সামাজিক দূরত্ব মেনেই শুধু উত্তরাখণ্ডের পুণ্যার্থীদের মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে।

[আরও পড়ুন: উসকানির অভিযোগে দিল্লির সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে FIR]

এমনিতেই সব আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে গত বুধবারই খুলে দেওয়া হয়েছে মন্দিরের দরজা। প্রথমদিন পুণ্যার্থীদের ঢুকতে না দেওয়া হলেও, মন্দিরের প্রধান পুরোহিত-সহ ২০ জনকে নিয়ে মন্দিরের দরজা খোলার পুজো অনুষ্ঠিত হয়। নিরাপত্তা রক্ষী, মন্দির কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে বাকি পুরোহিতদের নিয়ে পুজো সারেন মন্দিরের প্রধান পুরোহিত। তবে তখনও মন্দিরে পুণ্যার্থী প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি। আগামী ৪ মে থেকে সেটাও দেওয়া হবে।

[আরও পড়ুন: ‘মুসলিম বিরোধী কার্যকলাপ চললে প্রতিক্রিয়া আসবেই’, মোদিকে হুঁশিয়ারি শশী থারুরের]

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে উত্তরখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র রাওয়াত বলছেন, “আমরা ৪ মে থেকে গ্রিন জোন পুরোপুরি খুলে দেব। উত্তরাখণ্ডের মানুষ কেদারনাথ মন্দির দর্শন করতে পারবে। সামাজিক দুরত্বের বিধি যাতে মানা হয়, তা নিশ্চিত করা হবে।” উত্তরখণ্ড সরকারের দাবি, রাজ্যে সেভাবে করোনা ছড়ায়নি। ১৩টি জেলার মধ্যে দশটি গ্রিন জোনে। ২টি অরেঞ্জ এবং একটি মাত্র রেড জোনে। তাই রাজ্যে সংক্রমণের সম্ভাবনাও কম।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement