৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ধর্ষণের প্রতিবাদ করে মুখ খুলেছিলেন৷ সামনে এনেছিলেন আসল সত্যি৷ সেই সন্ন্যাসিনী কিনেছেন গাড়ি৷ আর এটাই নাকি তাঁর ‘অপরাধ’৷ এই অজুহাতে খ্রিস্টান গোষ্ঠী থেকে বহিষ্কৃত করা হল ওই সন্ন্যাসিনীকে৷ ভ্যাটিকানের কাছে বিচারের আরজি জানিয়েছেন তিনি৷

[আরও পড়ুন: বরখাস্ত যৌন হেনস্তায় অভিযুক্ত মেজর জেনারেল, পাবেন না পেনশনও]

সিস্টার লুসি কেরলের ওয়ানড়ে থাকে। সম্প্রতি একটি গাড়ি কেনেন তিনি৷ আর সমস্যার সূত্রপাত সেখানেই৷ শুধুমাত্র গাড়ি কেনার জন্য নাকি খ্রিস্টান গোষ্ঠী থেকে বহিষ্কৃতও করা হয়েছে তাঁকে৷ ওই সন্ন্যাসিনী বলেন, ‘‘আমার বিশেষ সম্পত্তি নেই৷ শুধুমাত্র নিজের দায়িত্ব পালন করতেই গাড়ি কিনেছি৷ আমার কেনা গাড়িটি বাজারে সবচেয়ে সস্তা। গাড়ি করে আমি অনেক বেশি গরিব রোগীর সঙ্গে দেখা করতে পারছি৷ এছাড়াও আমি স্কুলের ছোট ছোট ছাত্রছাত্রীদেরও গাড়িতে করে নিয়ে যাই৷ তবে আমি যা করি না কেন অন্যান্যরা তা ভাল চোখে দেখেন না৷’’

[আরও পড়ুন: পেহলু খান গণপিটুনি কাণ্ডের রায় নিয়ে বিতর্কিত টুইট, ফৌজদারি মামলা প্রিয়াঙ্কার বিরুদ্ধে]

বছরখানেক আগে ফাদার ফ্রাঙ্কো মুলাক্কালের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছিলেন এক সন্ন্যাসিনী৷ তাঁকে সমর্থন করেছিলেন সিস্টার লুসি৷ ওই সন্ন্যাসিনীর দাবি, নির্যাতিতাকে সমর্থন করার পর থেকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে তাঁকে৷ বারবারই তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে তিনি কোনও নিয়মই মানছেন না৷ তাঁর বিরুদ্ধে কেন এমন অভিযোগ উঠছে, সে সম্পর্কে তাঁর কোনও ধারণা নেই বলেই জানান লুসি৷ এছাড়াও ওই সন্ন্যাসিনীর দাবি, বারবার তাঁকে প্রাণহানির হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ তাতে বর্তমানে আতঙ্কে দিন কাটছে তাঁর৷ একসময় ধর্ষণের প্রতিবাদ করায় সন্ন্যাসিনী লুসি চক্রান্তের শিকার হতে হয়েছে বলেও জানান তিনি৷ এরপরই চরম পদক্ষেপ হিসাবে খ্রিস্টান গোষ্ঠী থেকে বহিষ্কৃতও করা হয় ওই সন্ন্যাসিনীকে৷ ভ্যাটিকানের কাছে বিচারের আবেদন জানিয়েছেন তিনি৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং