১১ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সাধারণতন্ত্র দিবসের সকালে পরপর বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল অসম। রবিবার সকালে পরপর তিনটি বিস্ফোরণ হয় ডিব্রুগড় ও চরাইদিউ এবং ধুলিয়াযান জেলায়। মাত্র ৩০ মিনিটের ব্যবধানে এই বিস্ফোরণগুলি ঘটে। যা নিয়ে রীতিমতো অতাঙ্কিত অসমবাসী। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনওয়াল।

[আরও পড়ুন: ‘মমতা-সহ বিরোধীরাই টুকরে টুকরে গ্যাং’, অবশেষে সন্ধান দিলেন অমিত শাহ]

অসম পুলিশ সূত্রের খবর, রবিবার সকালে প্রথম বিস্ফোরণটি হয় ডিব্রুগড়ের গ্রাহামবাজার এলাকায় ৩৭ নম্বর জাতীয় সড়কের কাছে একটি দোকানে। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশ ও প্রশাসনের আধিকারিকরা। পাঠানো হয় পুলিশ কুকুরও। যদিও, এই ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। এর আধ ঘণ্টার মধ্যেই আরও দুটি বিস্ফোরণের খবর পাওয়া যায়। চরাইদিউ এবং ধুলিয়াযান জেলা থেকে যে বিস্ফোরণের খাবর পাওয়া যায়, তার তীব্রতাও খুব একটা বেশি ছিল না। এখানেও হতাহতের কোনও খবর মেলেনি। তবে এই তিন ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে। উল্লেখ্য, গত রাতেও শিবসাগর জেলার একটি জায়গায় স্বল্পমাত্রায় বিস্ফোরণ হয়েছে। এই বিচ্ছিন্ন বিস্ফোরণের ঘটনাগুলির পিছনে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন উলফার হাত থাকতে পারে বলে ধারণা স্থানীয় প্রশাসনের। এই সংগঠনটি আগেই সাধারণতন্ত্র দিবস বয়কটের ডাক দিয়েছিল। এদিন রাজ্যজুডে় বনধও ডাকে উলফা।

[আরও পড়ুন: সাড়ে ৫ মাস গৃহবন্দি থাকার জেরে এ কী হাল ওমর আবদুল্লার! চমকে গেলেন মমতাও]

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন পাশ হওয়ার পর থেকেই অসমজুড়ে বিক্ষোভ দেখিয়ে আসছেন এর বিরোধীরা। পুলিশি ধরপাকড়ের জেরে বিক্ষোভ সাময়িকভাবে স্তব্ধ করা গেলেও ক্ষোভের উপশম হয়নি। স্বাভাবিকভাবেই প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে অসমজুড়ে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু, সেই নিরাপত্তার ঘেরাটোপ টপকেও পরপর বিস্ফোরণ ঘটাল দুষ্কৃতীরা। যা নিয়ে রীতিমতো উদ্বেগে রাজ্যবাসী।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং