১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

পালঘর সাধু হত্যা মামলায় উসকানিমূলক খবর সম্প্রচার! অর্ণব গোস্বামীকে নোটিস মুম্বই পুলিশের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: October 14, 2020 11:59 am|    Updated: October 14, 2020 11:59 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আরও বিপাকে সাংবাদিক অর্ণব গোস্বামী (Arnab Goswami)। টিআরপি কেলেঙ্কারিতে ইতিমধ্যেই তাঁর এবং তাঁর চ্যানেলের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। এবার পালঘর সাধু হত্যা এবং বান্দ্রার পরিযায়ী শ্রমিক বিক্ষোভ মামলায় রিপাবলিক টিভির সম্পাদককে নতুন করে নোটিস পাঠাল মুম্বই পুলিশ। মুম্বই পুলিশের অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার সুধীর জাম্বাভদেকর অর্ণবকে কারণ দর্শানোর নোটিস পাঠিয়েছেন। পুলিশের অভিযোগ, রিপাবলিক টিভির সম্পাদক পালঘর সাধু হত্যা এবং বান্দ্রার পরিযায়ী শ্রমিক বিক্ষোভ ইস্যুতে উসকানিমূলক খবর সম্প্রচার করেছেন। আগামী ১৬ অক্টবরের মধ্যে অর্ণবকে মুম্বই পুলিশের এসিপির কাছে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে।

এর আগে এই পালঘর সাধু হত্যার রিপোর্টিং নিয়েই বিতর্কে জড়িয়েছিলেন অর্ণব গোস্বামী। সেই বিতর্কের সুত্রপাত হয়েছিল অর্ণবের লাইভ-শো’তে করা একটি মন্তব্য থেকে। যাতে তাঁকে বলতে শোনা যায়, ইটালি থেকে আসা সোনিয়া গান্ধী (Sonia Gandhi) ইটালিয়ানদের নির্দেশে ভারতে পরিকল্পিতভাবে হিন্দুদের উপর হামলা করাচ্ছেন। ইটালিতে নিজের ‘কর্তা’দের খুশি করার জন্য পালঘরের ঘটনা নিয়ে তিনি নীরব। তাঁর কথাবার্তায় পুরোদস্তুর সাম্প্রদায়িক উসকানি ছিল বলে দাবি করে কংগ্রেস। দেশজুড়ে রিপাবলিক টিভির সম্পদকের বিরুদ্ধে শতাধিক মামলা হয়। এমনকী, তাঁর গাড়িতে হামলা হয় বলেও অভিযোগ করেন অর্ণব। পরে অবশ্য আদালত অর্ণবের বিরুদ্ধে হওয়া মামলাগুলি খারিজ করে দেয়।

[আরও পড়ুন: চাপে নতিস্বীকার! প্রত্যাহার প্রাক্তন বিজেপি নেতা চিন্ময়ানন্দের বিরুদ্ধে ওঠা ধর্ষণের অভিযোগ]

সেই বিতর্কের অবসান ঘটার পরপরই টিআরপি কেলেঙ্কারির (TRP Scam) অভিযোগ উঠেছে রিপাবলিক টিভির বিরুদ্ধে। মুম্বই পুলিশের (Mumbai Police) অভিযোগ, টাকা দিয়ে টিআরপি কিনছে অর্ণবের চ্যানেল। সেসব নিয়েও বিস্তর জলঘোলা চলছে। এরই মধ্যে নতুন করে অর্ণবকে পালঘর এবং বান্দ্রা মামলায় নোটিস পাঠাল পুলিশ। মুম্বই পুলিশ অর্ণবকে ভাল আচরণ করার প্রতিশ্রুতি স্বরূপ একটা বন্ডে সই করিয়ে নিতে চায়। সেই প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করলেই তাঁকে ১০ লক্ষ টাকা জরিমানা দিতে হবে। মুম্বই পুলিশের দাবি, পালঘর মামলায় নিজের বক্তব্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা করেছেন অর্ণব। অন্যদিকে, বান্দ্রা স্টেশনে পরিযায়ীদের জমায়েত মামলায় তিনি দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে বিবাদ বাঁধানোর চেষ্টা করেছিলেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement