BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

অযোধ্যা বিতর্কের জের, নেপালি যুবকের মাথা নেড়া করে লেখা হল ‘জয় শ্রীরাম’

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: July 17, 2020 7:51 pm|    Updated: July 17, 2020 7:51 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিনটি ভারতীয় ভূখণ্ডকে নিজেদের বিতর্কিত মানচিত্রে ঠাঁই দেওয়া পর থেকে বদলে গিয়েছে নেপালের আচরণ। মাঝে মধ্যে সীমান্তে উত্তেজনা তৈরি করছে তারা। এর পাশাপাশি কয়েকদিন আগে ভগবান রামের জন্ম উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় নয় নেপালে বলে দাবি করেছিল প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি (KPS Oli)। বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক চলার মধ্যেই রামের জন্মস্থানের খোঁজে নেপালের খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করেছে তাঁর সরকার। উত্তরপ্রদেশের বারাণসী (Varanasi)-তে তারই ফল ভুগতে হল নেপাল (Nepal) -এর এক যুবককে।

তাঁকে শারীরিকভাবে হেনস্তা করার পাশাপাশি মাথা নেড়া করে সেখানে জয়শ্রী রাম লিখে দিল উত্তরপ্রদেশের একটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের সদস্যরা। নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলির বিরুদ্ধে স্লোগান দেওয়ানোর সঙ্গে সঙ্গে জয় শ্রীরাম বলতে ও ভারতের পক্ষে স্লোগান দিতে বাধ্য করা হল। সম্পূর্ণ ঘটনাটির ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই ভারতে নিযুক্ত নেপালের রাষ্ট্রদূত নীলাম্বর আচার্য এর তীব্র নিন্দা করেছেন। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে কথা বলে অপরাধীদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ারও দাবি জানিয়েছেন। যোগী আদিত্যনাথ তাঁকে উত্তরপ্রদেশে বসবাসকারী নেপালের নাগরিকদের সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পাশাপাশি এই ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দেবেন বলেও আশ্বস্ত করেছেন। এদিকে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লোকসভা কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটায় প্রবল বিতর্ক তৈরি হয়েছে দেশের রাজনৈতিক মহলে।

[আরও পড়ুন: প্রেমের টান, গুগল ম্যাপ দেখে সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে প্রেমিকার কাছে যাওয়ার চেষ্টা যুবকের]

এপ্রসঙ্গে শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের ডিজিপি জানান, বারাণসী জেলা পুলিশের একজন উচ্চপদস্থ আধিকারিক এই ঘটনার তদন্তের ভার দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত সন্তোষ পাণ্ডে বলে একজন অভিযুক্ত গ্রেপ্তার হলেও এই ঘটনার মূল অভিযুক্ত অরুণ পাঠক পলাতক। বিশ্ব হিন্দু সেনা নামে বারাণসীর একটি সংগঠনের ওই নেতার সন্ধানে চারিদিকে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। খুব তাড়াতাড়ি তাকে গ্রেপ্তার করা হবে।

[আরও পড়ুন: ‘বিকাশ দুবের এনকাউন্টার ভুয়ো নয়’, সুপ্রিম কোর্টে দাবি উত্তরপ্রদেশের পুলিশের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement