BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আইনি সুরক্ষার সময়সীমা বাড়ানোর জন্য রাজীব কুমারের আর্জি খারিজ সুপ্রিম কোর্টে

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: May 20, 2019 2:02 pm|    Updated: May 20, 2019 2:02 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যে আইনজীবীদের কর্মবিরতি চলছে। এই কারণ দেখিয়ে সোমবার সু্প্রিম কোর্টে আইনি রক্ষাকবচের সময় আরও সাতদিন বাড়ানোর আবেদন জানান রাজীব কুমার। কিন্তু, বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি সঞ্জীব খান্নার ডিভিশন বেঞ্চ তা খারিজ করে দেয়। এবিষয়ে তাঁকে সেক্রেটারি জেনারেলের কাছে তিনজন বিচারপতি নিয়ে ডিভিশন বেঞ্চ তৈরির আবেদন জানানোরও পরামর্শ দিয়েছে।

গত শুক্রবার সিবিআইয়ের আবেদনের ভিত্তিতে রাজীব কুমারের গ্রেপ্তারির অর্ন্তবর্তী রক্ষাকবচ সরিয়ে নেয় সুপ্রিম কোর্ট। তবে এবিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য তাঁকে সাতদিনের সময়ও দেওয়া হয়। জানানো হয়, এই কয়েকদিনের মধ্যে আগাম জামিনের আবেদন করতে পারবেন কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল। কিন্তু, হাওড়া আদালতে আইনজীবীদের সঙ্গে পুরকর্মীদের মারামারির পর থেকে কর্মবিরতি পালন করছেন রাজ্যের আইনজীবীরা। ফলে থমকে আছে আদালতের যাবতীয় কাজ। তাই সোমবার সুপ্রিম কোর্টের কাছে সময়সীমা আরও সাতদিনের জন্য বাড়ানোর আবেদন জানান কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার।

[আরও পড়ুন- এক্সিট পোলে মোদি ঝড়, একলাফে সেনসেক্স বাড়ল ৯৬২ পয়েন্ট]

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সারদাকাণ্ডে প্রথমে আইপিএস অফিসার রাজীব কুমারের নেতৃত্বে সিট গঠন করেছিল রাজ্য সরকার। সিবিআই তদন্তভার নেওয়ার আগে পর্যন্ত তদন্ত চালিয়েছে তারাই। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার আধিকরিকদের অভিযোগ, সিট যখন সারদাকাণ্ডে তদন্ত করছিল, তখন প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা করেছেন রাজীব কুমার। এমনকী পরে সিবিআইয়ের তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গেও সহযোগিতা করেননি তিনি। তাই বাধ্য হয়ে কলকাতার তৎকালীন পুলিশ কমিশনারকে জেরা করতে কলকাতায় এসেছিলেন তদন্তকারীরা। কিন্তু, তাঁর বাড়িতে যাওয়ার পর কলকাতা পুলিশের কর্মীরা সিবিআই আধিকারিকদের উপর চড়াও হয় বলে অভিযোগ। এমনকী রাজীব কুমারের বাড়ির সামনে থেকে সিবিআই আধিকারিকদের থানায় তুলে নিয়ে যাওয়া হয় বলে অভিযোগ।

[আরও পড়ুন- সরকার গড়তে চালকের আসনে নেই উত্তরপ্রদেশ, বুথ ফেরত সমীক্ষায় পূর্বাভাস]

এরপর মামলা গড়ায় সুপ্রিম কোর্টে। শীর্ষ আদালতের নির্দেশে শেষপর্যন্ত শিলং-এ রাজীবকে সিবিআইয়ের জেরার মুখোমুখি হতে হয়। কিন্তু, তাতেও তিনি সহযোগিতা করছেন বলে অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে রাজীব কুমারকে তাদের হেফাজতে পাঠানোর আবেদন করে সিবিআই। এর প্রেক্ষিতে আদালতে পালটা হলফনামা দিয়ে রাজীব কুমার জানান, সিবিআই যা করছে, সবটাই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত। এই মামলার শুনানির পর গত ২ মে রায় ঘোষণার কথা ছিল। কিন্তু, তা পিছিয়ে দেয় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-র ডিভিশন বেঞ্চ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement