৪ আশ্বিন  ১৪২৬  রবিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্ত্রীর বিদেশযাত্রা ঠেকাতে তাঁকে আত্মঘাতী জঙ্গি বলে চিহ্নিত করেছিল। বিমানবন্দরে ফোন করে বলেছিল যে বোমা মেরে একটি বিমান উড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে তার স্ত্রী। এভাবে তাঁর বিদেশ যাত্রা আটকাতে পারলেও বোমাতঙ্কের ভুয়ো খবর ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করল দিল্লি পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে ধৃতের নাম নাসিরউদ্দিন (২৯) বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার তাকে দিল্লির ভাবনা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ধৃতের নামে একটি ফৌজদারি মামলাও দায়ের করেছে তারা।

[আরও পড়ুন: কাশ্মীরে সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করে ফের গুলি পাকিস্তানের, শহিদ জওয়ান]

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত নাসিরুউদ্দিনের তামিলনাড়ুর রাজধানী চেন্নাইয়ে একটি ব্যাগ তৈরির কারখানা আছে। সেখানকার এক মহিলা কর্মী রাফিয়াকে বিয়ে করেছিলেন তিনি। কিছুদিন ভারত ছেড়ে আরবে যাওয়ার পরিকল্পনা করেন রাফিয়া। বেশি টাকা রোজগারের লোভেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু, স্ত্রীর এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেনি নাসিরুউদ্দিন। তাঁর বিদেশযাত্রা ঠেকাতে সবরকম চেষ্টা চালায়। যদিও তাতে কোনও লাভ হয়নি। নিজের সিদ্ধান্ত অনড় থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশে যাওয়ার টিকিটও কেটে ফেলেন রাফিয়া।

Nasiruddin
নাসিরউদ্দিন

এরপরই স্ত্রীর বিদেশযাত্রা আটকাতে ছলের আশ্রয় নেয় নাসিরউদ্দিন। গত ৮ আগস্ট মধ্যপ্রাচ্যের বিমান ধরবেন বলে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যাচ্ছিলেন রাফিয়া। কিন্তু, তিনি সেখানে পৌঁছনোর আগেই বিমানবন্দরে ফোন করে নাসিরউদ্দিন। বলে, তার স্ত্রী রাফিয়া একজন আত্মঘাতী জঙ্গি। দুবাই বা সৌদি আরবগামী বিমান উড়িয়ে দেওয়ার চক্রান্ত করছে। তার এই ফোনের পর বিমানবন্দরে তল্লাশি শুরু করে সিআইএসএফ। কিন্তু, কোথাও কিছু পাওয়া যায়নি। এরপর তদন্তে নেমে পুরো ঘটনাটির কথা জানতে পারে পুলিশ। আর তারপরই গ্রেপ্তার করা হয় নাসিরউদ্দিনকে।

[আরও পড়ুন: ধর্ষণকাণ্ডে বহিষ্কৃত সন্ন্যাসিনী, ভ্যাটিকানের কাছে বিচারের আরজি প্রতিবাদীর]

গত জুলাই মাসের ৬ তারিখ প্রায় একই ধরনের ঘটনা ঘটেছিল তেলেঙ্গানার রাজধানী হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। হায়দরাবাদ থেকে কলকাতাগামী ইন্ডিগো সংস্থার বিমানে বোমা আছে বলে ফোন এসেছিল। তারপরই তৎপর হয়ে উঠেছিলেন বিমানবন্দরের নিরাপত্তা আধিকারিকরা। কারণ, ওইদিনই দলের সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি উপলক্ষে হায়দরাবাদে আসার কথা ছিল বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন সবাই। তদন্তে নেমেছিল হায়দরাবাদের পুলিশও। পরে জানা যায়, আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য ফোনটি করেছিল এক ব্যর্থ প্রেমিক।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং