BREAKING NEWS

৪ মাঘ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

দিল্লিতে অভিষেকের বৈঠকে গরহাজির মিমি-নুসরত, শোকজ তৃণমূলের

Published by: Paramita Paul |    Posted: December 7, 2021 6:15 pm|    Updated: December 7, 2021 8:29 pm

TMC show caused MP Mimi Chakrabarty and Nusrat for not attending Abhishek Banerjee's meeting in Delhi | Sangbad Pratidin

নন্দিতা রায়, নয়াদিল্লি: তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Abhishek Banerjee) বৈঠকে অনুপস্থিত সাংসদ-অভিনেত্রী নুসরত জাহান এবং মিমি চক্রবর্তী। অনুপস্থিতির কারণ জানতে চেয়ে তাঁদের শোকজ (Show Casuse) করল দল। দ্রুত জবাব দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দিল্লিতে তৃণমূলের সংসদীয় কমিটির বৈঠকে ছিলেন না শিশির অধিকারী এবং দিব্যন্দু অধিকারী। তাঁদের অবশ্য শোকজ করা হয়নি।

দলের অন্দরে শৃঙ্খলা আনতে তৎপর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই লক্ষ্যে দলীয় সাংসদদের একাধিক নির্দেশিকা দিলেন তিনি। অভিষেকের সাফ নির্দেশ, অধিবেশনে তৃণমূলের সাংসদদের ৯৭ শতাংশ হাজির থাকতেই হবে। সকল সাংসদদেরই অধিবেশনে অংশ নিতে হবে। থাকতে হবে সংসদের বিভিন্ন কর্মসূচিতে। সকাল সাড়ে দশটার মধ্যে সাংসদদের তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে হাজির হতে হবে সাংসদদের। 

[আরও পড়ুন: Kolkata Municipal Election: পুরভোটে লড়ছে ঘরের ছেলে, ক্ষোভে বাড়িছাড়া করল পরিবার]

এদিন দিল্লিতে দলীয় সাংসদদের নিয়ে বৈঠকে বসেছিলেন অভিষেক। চলতি অধিবেশনে তৃণমূলের রণকৌশল ঠিক করতে আলোচনা হয় সেখানে। কিন্তু সেই বৈঠকেই ছিলেন না দুই তারকা সাংসদ মিমি এবং নুসরত। বলে রাখা দরকার, ইতিপূর্বে সংসদে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিল পাসের সময় সংসদে গরহাজির থেকেছেন সাংসদ-অভিনেত্রীরা। তা নিয়ে বিতর্কও হয়েছিল। এবার দলীয় বৈঠকে না থাকায় তাদের সরাসরি শোকজ করল দল।  

Mimi Chakrabarty and Nusrat Jahan

 

এই প্রথমবার নয়, বাদল অধিবেশনের শুরুতেও দিল্লিতে সাংসদদের নিয়ে বৈঠক করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেও দলের শৃঙ্খলা রক্ষা নিয়ে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন তিনি। সংসদে সাংসদদের ১০০ শতাংশ হাজিরারও নির্দেশ দিয়েছিলেন। এবারও সেই বার্তা দিলেন অভিষেক। 

[আরও পড়ুন: শরীরে এই সমস্যাগুলি আছে? তাহলে ভুলেও কাজু খাবেন না]

উল্লেখ্য, চলতি অধিবেশনে বিজেপির বিরোধিতায় সরব হয়েছিলেন নুসরত জাহান। বলেছিলেন, ”লাভজনক রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির শেয়ার বিক্রির মাধ্যমে সরকার এখন কোষাগার ভরাতে চাইছে। কিন্তু কেন লাভজনক সংস্থার উপর এই কোপ? যদি বেসরকারিকরণের পথেই হাঁটতে হয়, তবে রুগ্ন সংস্থাগুলিকে বিক্রি করে পুনরুজ্জীবনের উদ্যোগ নেওয়া হোক। সরকারের কাছে আমার অনুরোধ যে পিপিপি (PPP) মডেলে সেসব অলাভজনক সংস্থাগুলিকে বিক্রির ব্যবস্থা করা হোক। আমার দল বরাবরই এভাবে লাভজনক সংস্থার উপর কোপ ফেলার বিরোধী। আমিও ফের সেকথাই মনে করিয়ে দিলাম।”  কিন্তু কেন দুই তারকা সাংসদ এদিন দলীয় বৈঠকে গরহাজির ছিলেন তা এখনও স্পষ্ট নয়। 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে