BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেনের সূচি নিয়ে বিভ্রান্তি! রেলমন্ত্রীকে বেনজির কটাক্ষ শিব সেনার

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: May 25, 2020 4:40 pm|    Updated: May 26, 2020 12:46 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশ যেতে গিয়ে চলতি সপ্তাহে ওড়িশা পৌছে গিয়েছিল পরিযায়ী শ্রমিকদের ট্রেন। সেই ঘটনার রেশ ধরেই রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলকে কটাক্ষ করলেন শিব সেনা নেতা সঞ্জয় রাউত। যদিও রেলমন্ত্রীর চেষ্টা নিয়ে কোনও সন্দেহ প্রকাশ করেননি শিব সেনার জোটসঙ্গী এনসিপি (NCP) নেতা শরদ পাওয়ার (Sharad Pawar)।

ঘটনার সূত্রপাত ২১ মে। ভাসাই রোড-গোরক্ষপুর শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন (The Vasai Road-Gorakhpur) উত্তরপ্রদেশের পরিবর্তে পৌঁছে গিয়েছিল ওড়িশায় (Odisha)। বাড়ি ফেরার আশায় জল ঢেলে ট্রেন রুট বদলে দাঁড়িয়েছিল ওড়িশায় রৌরকেল্লায়। বাড়ি ফেরার আশায় ১২০০ যাত্রীকে অপেক্ষা করতে হয় আরও একটু। প্রায় আড়াই দিন পর, পুবমুখী রেলের লাইনে ভিড় থাকায় ঘুরপথে চালানো হয় ট্রেন। বাসের রুট ঘুরিয়ে দেওয়ার মত ট্রেনের রুট ঘুরিয়ে তা পৌছয় গোরক্ষপুর (Gorakhpur)। তবে সে যাই কারণ হোক, সুযোগ পেলে বিরোধীরা কটাক্ষ করতে ছাড়বে কেন? রবিবার রাতেই রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল জানান যে, মহারাষ্ট্র থেকে আরও ১২৫টি শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেনের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। মহারাষ্ট্র সরকারের কাছ থেকে প্রয়োজন শ্রমিকদের তালিকা ও তথ্য। ফলে কোথা থেকে ট্রেন ছাড়বে, ট্রেনের গন্তব্য কোথায় হবে তা নির্ধারণ করা সম্ভব হবে রেলের তরফে। সঙ্গে পরিযায়ী শ্রমিকদের মেডিক্যাল সার্টিফিকেটেরও প্রয়োজন বলে মহারাষ্ট্র সরকারের কাছে আবেদন করেন রেলমন্ত্রী। এরপরই আগেরদিনের ঘটনার রেশ ধরে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি শিব সেনা নেতা সঞ্জয় রাউত। টুইট করে তিনি বলেন, “মহারাষ্ট্র সরকার আপনাকে শ্রমিকদের তালিকা পাঠিয়েছে। একটাই অনুরোধ, দয়া করে শ্রমিকদের সঠিক স্টেশনে পৌঁছে দেবেন। এর আগে পালঘর-গোরক্ষপুরগামী ট্রেন উত্তরপ্রদেশ না ঢুকে ওড়িশায় পৌছে যায়।” তবে শিব সেনার সঙ্গে তাল না মিলিয়ে শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে রেলমন্ত্রীর উপর যে ভীষণ দায়িত্ব সেই কথাই উল্লেখ করেছেন এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার।

[আরও পড়ুন:উড়ানে একাই সফর ৫ বছরের ‘বীরপুরুষ’-এর, দিল্লি থেকে বেঙ্গালুরু পৌঁছল খুদে]

পরিযায়ী শ্রমিকদের ভালমন্দ নিয়ে রাজনীতির আঙিনায় যুদ্ধ বাধলেও প্রতিটি শ্রমিককে পরীক্ষা করে স্টেশনে নামাতে সময় লাগছে বিস্তর। ফলে এক একটি স্টেশন দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে ট্রেনকে। এতেই পুবমুখী রেল লাইনে ট্রেনের ভিড় বাড়ছে বিস্তর। প্রতিটি ব্লক সেকশনে হাজারে হাজারে শ্রমিকদের নিয়ে অপেক্ষা করছে শ্রমিক স্পেশ্যাল ট্রেন।

[আরও পড়ুন:করোনা আক্রান্তের জন্য বেসরকারি হাসপাতালে ২০% বেড, ঘোষণা কেজরিওয়ালের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement