BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

লকডাউনেই জন্ম যমজ সন্তানের, নাম দেওয়া হল ‘করোনা’ ও ‘কোভিড’

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: April 3, 2020 12:34 pm|    Updated: April 3, 2020 1:05 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশজোড়া লকডাউনের আবহে রায়পুরে জন্ম নিল যমজ নবজাতক। একে করোনার আতঙ্ক অন্যদিকে লকডাউনের জেরবার দশায় এই দুই শিশুর নাম রাখা হল ‘করোনা’ ও ‘কোবিদ’। এই নামদুটি শুনে মানুষের মনে ভয় জাগলেও রায়পুরের এই দম্পতি তাঁদের সন্তানদের এই নাম দিয়ে করোনাকে হারানোর কথা ভেবেছেন।

লকডাউন, করোনা, কোয়ারেন্টাইন এই শব্দগুলো মানুষের কাছে অতি পরিচিত ও আতঙ্কের। তবে সব আতঙ্ককে অতিক্রম করে জীবনের জয়গান যে সম্ভব তা ‘করোনা’ ও ‘কোবিদ’ এই নামদুটো মানুষকে ভবিষ্যতে জানান দেবে। তাই এই নামদুটো আতঙ্কের নয়, আনন্দের সঙ্গে সকলের মনে রাখার জন্য নিজেদের সদ্যোজাত যমজ সন্তানের নাম দেন ‘করোনা’ ও ‘কোবিদ’। রায়পুরের এক দম্পতি তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ের নাম রাখেন এই নামে। করোনা সংক্রমণের আতঙ্কের পরিবেশে এই দুই সন্তান আনন্দের জোয়ার এনেছে তাঁদের পরিবারে। তবে পরে যমজ সন্তানদের নাম পরিবর্তন করতে বাধ্য হন তাঁরা। মেয়ের নাম করোনার পরিবর্তে প্রীতি বর্মা রাখেন। শিশুটির মা জানান,”২৭ মার্চ যেদিন এই দুই শিশুর জন্ম দেন তখন দেশ করোনার ত্রাসে বিদ্ধস্ত। তাই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতেই এই উদ্যোগ নিই। দেশের সকলে যখন হাত স্যানিটাইজ করতে, নিজেদের অভ্যাস পরিবর্তনে ব্যস্ত তখন আমরা এই দুটো নাম রাখব বলেই স্থির করি। তবে হাসপাতালের সকলে ওদের করোনা ও কোবিদ নামে ওদের ডাকতে শুরু করলে বুঝতে পারি মানুষের মনে থাকা করোনা সংক্রমণের ভয় বাচ্চাদের নামে প্রভাব ফেলতে পারে। তাই নাম দুটো পরিবর্তন করে দিই।”

[আরও পড়ুন:পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে! যোগী সরকারের সমালোচনায় সরব স্বস্তিকা]

উত্তরপ্রদেশের এই দম্পতির কথায় ২৬ মার্চ রাতে প্রসব বেদনা অনুভূত হওয়ায় লকডাউনের বাজারে তারা প্রথমে চিন্তিত হয়ে পড়েন তবে পুবিশ ও স্থানীয়দের সহায়তায় তারা অ্যাম্বুল্য়ান্স জোগাড় করে হাসপাতালে পৌঁছে যান। লকডাউনের পরিস্থিতিতেও হাসপাতালে চিকিৎসকদের পরিষেবা পেয়ে শ্বস্তির শ্বাস নেন তাঁরা। তবে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় তাদের পরিবারের কেউ হাসপাতালে পৌঁছতে পারেননি।

[আরও পড়ুন:করোনা আক্রান্ত নিজামউদ্দিন ফেরত কর্মী, আতঙ্কে কাজ বন্ধ হলদিয়া বন্দরে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement