BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বেহাল চিকিৎসা ব্যবস্থা, ছাদ ফেটে কোভিড ওয়ার্ডে ঢুকছে বৃষ্টির জল, ভাইরাল ভিডিও

Published by: Sulaya Singha |    Posted: July 19, 2020 5:22 pm|    Updated: July 19, 2020 5:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নিচের ভিডিওটি দেখলে চোখ কপালে উঠতেই পারে। করোনা চিকিৎসায় যে স্থানকে সবচেয়ে সুরক্ষিত বলে মনে করা হয়, সেই হাসপাতালই রীতিমতো ‘নরকে’ পরিণত হয়েছে। ছাদ ফুটো হয়ে ঝমঝম করে বৃষ্টির জল এসে পড়ছে মেঝেতে। আর সেই ফ্লোরের বেডেই শুয়ে কোভিড-১৯ (COVID-19) রোগী।

উত্তরপ্রদেশের (UP) বরেলির এই চিকিৎসা ব্যবস্থার ভিডিও ভাইরাল হতেই চূড়ান্ত অস্বস্তিতে পড়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ওই কোভিড ওয়ার্ডে থাকা এক রোগীই মোবাইলে ঘটনাটি রেকর্ড করেন। যেখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, ছাদে যে পাইপ লাইন করা ছিল, তা ফেটে গিয়েই সজোরে বৃষ্টির জল ভিতরে ঢুকে পড়ছে। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই বরেলির যুগ্ম জেলাশাসন ঈশান প্রতাপ সিং জানান, একটি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের ঘটনা এটি। আপাতত সেখানে করোনা আক্রান্ত রোগীদেরই চিকিৎসা করা হচ্ছে। আসলে, হাসপাতাল মেরামতির কাজ চলছিল। তখনই পাইপ ফেটে এই কাণ্ড ঘটে। তিনি এও জানান, ইতিমধ্যেই সেই পাইপলাইন সারিয়ে দেওয়া হয়েছে। রোগীদের আপাতত অন্য ওয়ার্ডে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: বিহারের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ডাক্তারের দেখা নেই, অভিযোগের মধ্যেই পরিদর্শনে কেন্দ্রীয় দল]

তবে এই প্রথম নয়, এর আগেও একাধিকবার যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে বেহাল চিকিৎসা ব্যবস্থার ছবি ধরা পড়েছে। হাসপাতালের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের ছবি তুলে ধরেছেন কোভিড-১৯ পজিটিভ রোগীরাই। গোরক্ষপুরের নামী BRD মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ভিতরও কীভাবে বৃষ্টির জল ঢুকে গিয়েছিল, সে ভিডিও-ও ছড়িয়ে পড়ে নেটদুনিয়ায়। এবার বরেলির ভিডিওয় নতুন করে হাসপাতালের কঙ্কালসার চেহারা বেরিয়ে এল।

তবে শুধু উত্তরপ্রদেশকেই দুষলে ভুল হবে। কর্ণাটকের কোভিড হাসপাতালে আবার ঘুরে-ফিরে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে শূকরের দল! অথচ কোনও ভ্রুক্ষেপ নেই স্বাস্থ্যকর্মীদের। সেই ভিডিও ভাইরাল হতেই সমালোচনার ঝড় ওঠে। তীব্র বিতর্কের মুখে পড়ে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বি শ্রীরামুলু দ্রুত হাসপাতাল সাফাইয়ের নির্দেশ দেন। এমন ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয়, তাও নিশ্চিত করতে বলেন।

pigs

[আরও পড়ুন: তিরুপতি মন্দির ফের খোলার জন্যই বেড়েছে সংক্রমণ, অভিযোগ অন্ধ্রপ্রদেশের পুলিশের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement