২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মহানগরে বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতির রোড শো ঘিরে একেবারে রণক্ষেত্র হয়ে উঠল কলেজ স্ট্রিট চত্বর৷ সন্ধের পর থেকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অমিত শাহর রোড শো আটকে বিক্ষোভ দেখান টিএমসিপির সদস্যরা৷ কালো পতাকা, ‘গো ব্যাক’ স্লোগান লেখা পোস্টার নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটে বসে অবস্থান দেখানোর পাশাপাশি যাত্রাপথ আটকেও দাঁড়ানো হয় বলে অভিযোগ৷ সেটাই শুরু৷ সেখান থেকেই সমস্যার সূত্রপাত৷ মিছিলে থাকা বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে টিএমসিপি সদস্যদের হাতাহাতি বেঁধে যায়৷ রোড শো আরও খানিকটা এগোতে বিধান সরণিতে বিদ্যাসাগর কলেজের সামনে থেকে  বিক্ষোভের আগুনে ঘি পড়ে দাউদাউ জ্বলে ওঠে৷

[আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় বাহিনীর কাজে ক্ষোভ, কমিশনের সিইও-কে চিঠি রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিবের]

বিদ্যাসাগর কলেজের সামনে টিএমসিপি এবং বিজেপি কর্মীদের সংঘর্ষ শুরু হয়৷ ব্যারিকেড ভেঙে এগোতে চায় বিক্ষুব্ধরা৷ ইট ছোঁড়াছুঁড়ি শুরু হয় দু’পক্ষের মধ্যে৷ বিদ্যাসাগর কলেজের তখন সান্ধ্যকালীন ক্লাস চলছিল৷ হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে এবিভিপি-টিএমসিপি সদস্যরা৷ দু’পক্ষের ধুন্ধুমারে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় কলেজ ক্যাম্পাস৷ এমনকী বিদ্যাসাগর কলেজের সামনে ঐতিহ্যবাহী দুশো বছরের পুরনো ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে দেওয়া হয়েছে৷

vidyasagar statue

কলেজের গেটে আগুন জ্বলে ওঠে৷ ধস্তাধস্তিতে  আহত হন বেশ কয়েকজন৷ ইঁটবৃষ্টি মাথা ফেটে যায় দু,একজন পড়ুয়া৷ আর্মহার্স্ট স্ট্রিট থানার পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে৷ জনতা ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ করা হয়৷ 

[আরও পড়ুন:‘বাংলায় এবার গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার লড়াই’, তৃণমূলকে আক্রমণ শমীকের]

ঘটনা ঘিরে চাপানউতোর শুরু হয়ে গিয়েছে তৃণমূল এবং বিজেপি শিবিরে৷ একে অন্যকে দোষারোপ করছে৷ অমিত শাহ প্রতিক্রিয়ায় গোটা ঘটনার দায় চাপিয়েছেন রাজ্য প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের উপর৷ তাঁর অভিযোগ, পুলিশের ভূমিকা একেবারেই নিন্দনীয়৷ মিছিল ভুল পথে চালিত করেছে পুলিশ৷ ওই এলাকা যে এতটা উত্তেজনাপ্রবণ হয়ে উঠেছিল, তা বুঝতে পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে৷ তাই তাঁদের সমর্থকদের এমন এক নিদারুণ পরিস্থিতির মুখে পড়তে হল৷ এদিকে, রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় গোটা বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন৷ তাঁর বক্তব্য, তিনি ওই ঝামেলার আগেই মিছিল থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন, তাই তিনি অশান্তির বিষয়টি সম্পর্কে জানেন না৷

কলেজ স্ট্রিট চত্বরে বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতির রোড শো ঘিরে যখন এমন ধুন্ধুমার, সেসময় মুখ্যমন্ত্রী বেহালায় জনসভায় ব্যস্ত৷ ঘটনার খবর পৌঁছেছে তাঁর কানেও৷ তিনি এই অশান্তি, বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙা নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিযোগ তুলেছেন, অমিত শাহ রোড শোয়ের জন্য উত্তরপ্রদেশ, ঝাড়খণ্ড থেকে লোক নিয়ে এসেছেন৷ আর তাঁরাই এমন অপ্রীতিকর পরিস্থিতির তৈরি করেছে৷ পরে এবিষয়ে তিনি স্থানীয় প্রশাসনের কাছে খোঁজখবরও নেন৷ 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং