৯ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ মে ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo নির্বাচন ‘১৯ দেশের রায় LIVE রাজ্যের ফলাফল LIVE বিধানসভা নির্বাচনের রায় মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
নির্বাচন ‘১৯

৯ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ মে ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘ভোটের মরশুমে কলকাতার বাজারে ঘোরাফেরা করছে হাওয়ালার কোটি কোটি টাকা৷ ক্ষমতা থাকলে, একটা বেআইনি টাকাও কাজে লাগাতে দিতেন না৷’ মঙ্গলবার যাদবপুর কেন্দ্রের অন্তর্গত বিজয়গড়ের প্রচার সভা থেকে এমনই হুঁশিয়ারি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বেশ জোরালো কণ্ঠেই বললেন, ‘নির্বাচনের পর যদি বুঝতে পারি, প্রশাসনের কেউ এই টাকার খেলায় জড়িত, তাহলে কিন্তু কাউকে ছাড়ব না৷ আমি সব খবর রাখছি৷’

[আরও পড়ুন: কেন্দ্রীয় বাহিনীর কাজে ক্ষোভ, কমিশনের সিইও-কে চিঠি রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিবের]

মঙ্গলবার কিছুটা বিকেলের দিকেই সভা শুরু করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এদিন একেবারে শহর ঘুরে প্রচার কর্মসূচি ছিল তাঁর৷ যাদবপুর কেন্দ্রের জন্য বিজয়গড় ও টালিগঞ্জে, কলকাতা দক্ষিণ কেন্দ্রের জন্য বেহালায় জনসভা করেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ বিজয়গড়ে যাদবপুরের তারকা প্রার্থী মিমি চক্রবর্তীর হয়ে প্রচার দিয়ে শুরু করেন এদিনের কর্মসূচি৷ শুরুতেই মিমির মতো নায়িকাকে প্রার্থী করার ব্যাখ্যা দিলেন৷ কোনও কোনও মহল থেকে প্রশ্ন উঠছিল মিমি, নুসরতকে দলের সুপ্রিমো প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছেন কেন? তারই জবাবে মমতা বলেন,‘অনেকে ভাবছেন, ওরা সিনেমা করে৷ ওরা রাজনীতি কী বুঝবে? এটা কিন্তু ঠিক কথা নয়৷ ওরা খুব কম সময়ের মধ্যে কাজটা বেশ ভাল বুঝেছে৷ নুসরতও কাজটা বুঝে গিয়েছে৷ এত কম সময়ের মধ্যে ওরা নিজেদের কাজ বুঝে যাওয়ায় আমি আনন্দিত৷’

[আরও পড়ুন: ‘বাংলায় এবার গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার লড়াই’, তৃণমূলকে আক্রমণ শমীকের]

গত কয়েকদিন শহর এবং দু-একটি জেলায় লক্ষ, কোটি বেআইনি টাকার হদিশ মিলেছে৷ আসানসোলে কোটি টাকা-সহ ধরা পড়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রাক্তন আপ্ত সহায়ক৷ সেসব প্রসঙ্গ উল্লেখ করে এদিনের প্রচার সভায় তোপ দেগেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ রীতিমতো হুঁশিয়ারির সুরে তিনি বলেন, ‘কলকাতায় লক্ষ-কোটি টাকা উড়ছে৷ আমার ক্ষমতা থাকলে একটা টাকাও ব্যবহার করতে দিতাম না৷ কমিশনকে জানিয়েছি সব৷ জানতে চেয়েছি, ওরা কী ব্যবস্থা নিচ্ছে৷ নির্বাচন শেষ হয়ে গেলে তো কমিশন থাকবে না৷ তখন যদি জানতে পারি, প্রশাসনের কেউ টাকা নিয়েছেন, আমি কিন্তু ছেড়ে দেব না৷’

[আরও পড়ুন: লেনিন সরণি থেকে সরল ফ্লেক্স, অমিত শাহের রোড-শো শুরুর আগেই উত্তেজনা]

চিরাচরিত ভঙ্গিতে এই সভা থেকেও তিনি বিজেপিকে আক্রমণ শানিয়েছেন৷ বাংলার সংস্কৃতি, টাকা দিয়ে ভোট কেনার চেষ্টা-সহ একাধিক অভিযোগে বিজেপি বিরোধিতার ডাক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বলেন, ‘ওরা ফেসবুক না, ফেকবুক ব্যবহার করে৷’ মঙ্গলবার বিজয়গড়ের সভা শেষ করে তিনি কলকাতা দক্ষিণ লোকসভা কেন্দ্রেরই অন্তর্গত টালিগঞ্জ ফাঁড়িতে চলে যান, প্রার্থী মালা রায়ের সমর্থনে প্রচার করতে৷ এত বেশি দফায় ভোট হওয়া নিয়ে আবারও প্রশাসনিক কাজ ব্যাহত হওয়ার অভিযোগ তুলেছেন৷ ক্ষোভের সঙ্গে তাঁর গলায় একটু আক্ষেপের সুরও বেজে উঠল৷ এতদিন ধরে তিনি লাগাতার নির্বাচনী প্রচার করায় অনেকদিন বাড়ি ফিরতে পারেননি, এই আক্ষেপ ঝরে পড়ল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর গলায়৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং