১ আষাঢ়  ১৪২৬  রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

১ আষাঢ়  ১৪২৬  রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

মণিশঙ্কর চৌধুরী ও তনুজিৎ দাস: লোকসভা ভোটের শেষে বেশ উৎফুল্ল মেজাজে পাওয়া গেল যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী অনুপম হাজরাকে। দিনভর বিভিন্ন বুথে পর্যবেক্ষণ চালিয়েছেন তিনি। একাধিকবার বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন। কিন্তু এত কিছু সত্ত্বেও নিজের জয় নিয়ে কার্যত নিশ্চিত অনুপম হাজরা। প্রতিদ্বন্দী তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মিমি চক্রবর্তীকে নিয়ে প্রশ্নবাণ সহাস্যেই সামলালেন তিনি। আজ সারাদিন ভোট ময়দানে দেখা যায়নি মিমিকে। এনিয়ে প্রশ্ন করা হলে বিজেপি প্রার্থীর জবাব, “মিমি চক্রবর্তীকে দেখুন কোথাও গিয়ে মেকআপ নিচ্ছেন, কোথাও গ্লাভস পরে বসে আছেন।”

অনুপমের এই বক্তব্যের পরই হাসির রোল ওঠে চারদিক থেকে। তবে এই একটা বিষয় থেকেই পরিষ্কার, বেশ হালকা মেজাজেই রয়েছেন অনুপম। তবে শুধু যে তিনি মিমিকে কটাক্ষ করেছেন, তাই নয়। আত্মবিশ্বাসী অনুপমের মতে, লোকসভা ভোটের ফিনিশিং টাচ নিয়ে তিনি খুশি। কয়েক জায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তি হয়েছে। কিন্তু তাতে কিছু যায় আসে না। কারণ মানুষের আবেগ বিজেপির সঙ্গে রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ এমন রাজ্য যেখানে ‘জয় শ্রী রাম’ বললে মানুষকে গ্রেপ্তার হতে হয়। কিন্তু সেসব উপেক্ষা করেই মানুষ রামের নামে জয়ধ্বনি দিচ্ছে। এসব তাঁর জয়েরই প্রথম ধাপ বলেই মন করেন অনুপম।

[ আরও পড়ুন: পুলিশি নিরাপত্তায় পরিবারকে এড়িয়ে বাড়ির পাশের বুথে ভোট দিলেন শোভনের ]

বিক্ষিপ্ত অশান্তি যে হয়নি, তা নয়। তবে ভোটের সম্পূর্ণ পরিস্থিতি নিয়ে তিনি খুশি। যাদবপুর কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী বলেন, তৃণমূল ভয় পেয়েছে। তারা বুঝে গিয়েছে ক্ষমতা তাদের যেতে চলেছে। সেই কারণে আপ্রাণ চেষ্টা করেছে মানুষকে ভয় দেখিয়ে ভোট লুট করার। কিন্তু সাধারণ মানুষের আবেগ যে দলের সঙ্গে থাকে, সে দলকে হারানো মুশকিল। তবে তিনি জায়গায় জায়গায় যাবেন, মিডিয়া তাঁর পিছনে ছুটবে, তা নিয়ে কিছু ভাবেননি তিনি। এসব তাঁর স্ট্র্যাটেজি ছিল না। তাঁর স্ট্র্যাটেজি ছিল ভাঙড় নিয়ে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা ময়দানে নামেনি। কী ছিল সেই স্ট্র্যাটেজি? হাসিমুখেই অনুপম বললেন, “২৩ তারিখেই না হয় শুনবেন।”

তবে লোকসভা ভোটের শেষে কোনও প্রতিপক্ষকেই গুরুত্ব দিতে নারাজ অনুপম হাজরা। তিনি বলেন, “প্রথম থেকেই আমার লক্ষ্য মোদিজির মূল পরিকল্পনা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া। সেটা ঠিকমতো হলে জেতা নিয়ে কোনও সংশয় থাকে না। কারণ মোদিজি যেসব স্কিম তৈরি করেছেন, পশ্চিমবঙ্গে বাস্তবায়িত করতে দেওয়া হয়নি। আমি চাই, সেই পরিকল্পনাগুলো যেন মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়।” এরপরই মিমিকে নিয়ে অনুপমের মন্তব্য, “উনি দেখুন কোথায় মেকআপ নিচ্ছেন। প্রচারের সময় উনি বলেছিলেন, এক মাসের ছুটি নিয়ে এসেছি। অতএব এক বছর দেখা যাবে না, সেটা তো স্বাভাবিক। ওঁর সঙ্গে এত গুণ্ডাবাহিনী রয়েছে, উনি ভেবেছিলেন, টুকে পাশ করব। কিন্তু এভাবে মানুষকে বোকা বানানোর দিন শেষ।”

আর এখন যেটা হট-টপিক, সেই বিদ্যাসাগর? অনুপম জানিয়েছেন, বাঙালির ‘বর্ণপরিচয়’ শুরু হয় বিদ্যাসাগরকে দিয়ে। মূর্তি ভাঙার দায় সম্পূর্ণ শাসকদলের উপর চাপিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, অমিত শাহ সেদিন রোড-শো করছিলেন। সেদিক থেকে দৃষ্টি ঘোরানোর জন্যই বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে তৃণমূল।

[ আরও পড়ুন: গরম থেকে সাময়িক স্বস্তি, ক্ষণিকের বৃষ্টিতে ভিজবে তিলোত্তমা ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং