BREAKING NEWS

২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

আপাতত গলল বরফ, সরকারি আশ্বাসে বৃহস্পতিবার থেকে রাস্তায় বাস নামাতে রাজি মালিকরা

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 1, 2020 10:00 pm|    Updated: July 1, 2020 10:00 pm

An Images

নব্যেন্দু হাজরা: সরকারি আশ্বাসে আপাতত রাস্তায় বাস নামাতে রাজি হলেন মালিকরা। বুধবার পরিবহণ দপ্তরের কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে মালিকরা একাধিক নতুন দাবি তোলেন। সেই দাবি বিবেচনার আশ্বাসে কিছুটা রফাসূত্র বেরয় সেখানে। আর তারপরই বৃহস্পতিবার থেকে ফের রাস্তায় বাস নামানোর আশ্বাস দিয়েছেন মালিক সংগঠনের নেতারা। তবে এই সমধানসূত্র যে দীর্ঘস্থায়ী নয়, তাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন তাঁরা। মালিকদের দাবি, আপাতত কিছুদিন বাস নামবে। সরকার তাদের দাবিগুলো পূরণের ব্যাপারে কী ভাবে, তা দেখেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত। নিজেদের দাবিগুলি লিখিতভাবে পরিবহণ দপ্তরে আজ তাঁরা জমা দেবেন।

যাত্রীস্বার্থে সরকার যে কোনওকিছুর সঙ্গেই আপোস করবে না, তা মঙ্গলবারই পরিষ্কার করে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। জানিয়ে দিয়েছিলেন, বাস না নামালে তা তুলে নেবে সরকার। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণায় কিছুটা চাপে পড়ে যান মালিকরা। আর তারপরই বরফ গলতে শুরু করে। এদিন দপ্তরের কর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন বাসমালিক সংগঠনের নেতারা। সরকারের অনমনীয় মনোভাবের কারণে নিজেদের অবস্থান থেকে কিছুটা বেরিয়ে আসার মঙ্গলবারই রাস্তা খুঁজছিলেন তাঁরা। সেটা রাস্তাই পরিবহণ সচিবের উপস্থিতিতে বুধবারের বৈঠকে প্রশস্ত হলো।

[আরও পড়ুন: একুশের লক্ষ্যে বঙ্গ বিজেপির নয়া হাতিয়ার বিধান রায়, বাঙালি আবেগে শান দিলেন দিলীপ]

বৈঠক শেষে বাস মালিকরা জানান, পারমিট, ইন্স্যুরেন্স, সিএফ, ট্যাক্স ফি মকুব-সহ একাধিক দাবি জানানো হয়েছে সরকারের কাছে। পাশাপাশি রাস্তায় পুলিশ সাইটেশন কেস যাতে না দেয়, তা দেখতে বলা হয়েছে সরকারকে। এবং পুরোনো মামলার যাবতীয় জরিমানা মকুবের কথা বলা হয়েছে। পরিবহন দপ্তর সেগুলো বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে। জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বৈঠক খুব ভাল হয়েছে। আমাদের দাবিদাওয়াগুলো সরকার বিবেচনা করবে বলেছে। তাই বৃহস্পতিবার থেকে রাস্তায় বাস নামবে। আগের থেকে বেশিই নামবে।”

[আরও পড়ুন: বাস সমস্যা সমাধানে উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন কমিটি গঠনের আবেদন, হাই কোর্টে দায়ের জনস্বার্থ মামলা]

বাস মিনিবাস সমন্বয়ক সাধারণ সম্পাদক রাহুল চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আমাদের সংগঠনের বাস রাস্তায় নামছে। বসে যায়নি। এদিন সরকারের কাছে নতুন কিছু দাবি রেখেছি। সরকার সেগুলো বিবেচনা করবে।” আবার বেসরকারি বাসকেও ই-বাসের মতো ভাড়ায় চালাতে চাইছে পশ্চিমবঙ্গ বাস মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ নারায়ণ বসু জানান, ”ই-বাসের মতো যতগুলো আসন, ততজন যাত্রী আমরা তুলতে চাই। সেক্ষেত্রে ভাড়াও ই-বাসের মতো করা হোক।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement