১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের বাসভবন, কার্যালয়ের পর এবার সোজা রাজ্যের প্রশাসনিক ভবনে পৌঁছে গেল সিবিআই। রবিবার বিকেল নাগাদ চিঠি নিয়ে নবান্নে গেলেন সিবিআইয়ের ২ প্রতিনিধি। সূত্রের খবর, তাঁদের কাছে চারটি চিঠি রয়েছে। তার মধ্যে একটি খামে ডিজির নাম উল্লেখ রয়েছে। অর্থাৎ সেই চিঠিটি রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্রর কাছে পৌঁছে দেবেন তাঁরা। একটি চিঠি মুখ্যসচিব এবং একটি স্বরাষ্ট্রসচিবের নামে রয়েছে। কী বিষয়ে চিঠি, তা জানতে চাইলে সিবিআই আধিকারিকরা জবাব এড়িয়ে গিয়েছেন। ছুটির দিন হওয়ায়, নবান্নে রাজ্য সরকারের তরফে কোনও প্রতিনিধি উপস্থিত না থাকায় মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবের চিঠি দেওয়া যায়নি। তবে রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র চিঠিটি নিয়েছেন বলে সূত্রের খবর। সোমবার ফের চিঠি নিয়ে যাওয়া হবে নবান্নে।

[আরও পড়ুন: ছুটির কলকাতায় বাসের বেপরোয়া গতি, ভয়াবহ দুর্ঘটনায় আহত ২৫ জন]

রবিবার বিকেল ৫টার একটু পর নবান্নে পৌঁছন সিবিআইয়ের দুই প্রতিনিধি। নিরাপত্তারক্ষীদের তাঁরা জানান, চিঠি নিয়ে এসেছেন, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের হাতে তা দিতে হবে। তাঁদের জানানো হয়, চিঠিগুলি রিসিভ করার মতো আজ কেউ নেই নবান্নে। কারণ, আজ ছুটির দিন। একথা শুনে সিবিআইয়ের প্রতিনিধিরা বেশ ১৫ মিনিট অপেক্ষা করেন। সেসময়ই সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা পড়ে এই ছবি। সাংবাদিকরা তাঁদের চিঠির বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানতে চান। জবাব এড়িয়ে গিয়েছেন দুজনই। তবে খামবন্ধ চিঠির ছবি তাঁরা সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরায় দেখিয়েছেন। সেখানেই বোঝা গিয়েছে, চিঠি রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র, মুখ্য ও স্বরাষ্ট্রসচিবকে চিঠি পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। পরে বীরেন্দ্রর তরফে চিঠি গ্রহণ করা হয়েছে।

এই মুহূর্তে রাজীব কুমার বনাম সিবিআইয়ের সংঘাত চরমে। আইনি লড়াইয়ে একে অন্যকে টেক্কা দিতে মরিয়া। সিবিআইয়ের তলব বারবার এড়িয়ে কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার আদালতে নিজের আইনি সুরক্ষা খুঁজছেন। অন্যদিকে, সিবিআইও তাঁকে নিজেদের হেফাজতে পেতে মরিয়া। রাজীব কুমার নিজে ই-মেল করে সিবিআইকে জানিয়েছেন, তিনি ছুটিতে বাইরে আছেন। এক মাস পর হাজিরা দিতে পারবেন।

আর তাঁর এই ই-মেলের পরিপ্রেক্ষিতেই সিবিআই নবান্নের দ্বারস্থ হয়েছে বলে প্রাথমিক অনুমান ওয়াকিবহাল মহলের। একজন আইপিএস অফিসার যদি তাঁর বর্তমান জায়গা ছেড়ে অন্যত্র যান, সেক্ষেত্রে সরকারকে জানিয়ে যেতে হয়। তাই সরাসরি রাজ্যের প্রশাসনিক সদর দপ্তরে গিয়েই সিবিআই জানতে চাইছে, রাজীব কুমার এই মুহূর্তে কোথায় আছেন। আদৌ তিনি কলকাতার বাইরে কি না। মনে করা হচ্ছে, রাজীব কুমারকে হাতে পেতে সিবিআই আর কোনও ফাঁক রাখতে চাইছে না। আইনি প্রস্তুতির সঙ্গে প্রশাসনিক সমস্ত নিয়মকানুনও সেরে রাখছে তারা। ইতিমধ্যেই সিবিআই শীর্ষ আধিকারিকদের তলব পেয়ে দিল্লি গিয়েছেন আইনজীবী জেওয়াই দস্তুর। 

[আরও পড়ুন: দলে ফিরছেন শোভন! প্রাক্তন মেয়রকে তৃণমূল শীর্ষ নেতার ফোনে তুঙ্গে জল্পনা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং