BREAKING NEWS

১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

করোনা আতঙ্ক নবান্নেও, সেল্‌ফ কোয়ারেন্টাইনে স্বরাষ্ট্রসচিব এবং তাঁর স্ত্রী

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: March 18, 2020 3:43 pm|    Updated: March 18, 2020 3:43 pm

Corona scare: Alapan Banerjee and his wife in self quarentine

সংবাদ প্রতিদিন ব্যুরো: বিদেশ প্রতিমন্ত্রী, প্রাক্তন রেলমন্ত্রীর পর এবার সেল্‌ফ কোয়ারেন্টাইনে গেলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর স্ত্রী। আজ থেকে আগামী ১৪ দিন তিনি পৃথক থাকবেন। তাঁর স্ত্রী সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। তিনি আজ বিশ্ববিদ্যালয়ে যাননি। পরে জানা গিয়েছে, তিনিও সেল্‌ফ কোয়ারেন্টাইনে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সূত্রের খবর, নবান্ন সহকর্মীর করোনা আক্রান্ত ছেলের সঙ্গে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় দেখা করেছিলেন। সেই কারণে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে স্বরাষ্ট্রসচিবের এই সিদ্ধান্ত।করোনা সতর্কতা সত্ত্বেও ছেলেকে নিয়ে নবান্নের ওই আমলা গিয়েছিলেন, এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয়েছে সাফাইকাজ। গোটা ভবনটি পরিষ্কারের পাশাপাশি ওই আমলার ৫১১ নং ঘরটি সিল করে দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

কলকাতায় নোভেল করোনা ভাইরাস থাবা বসানোর পর থেকে নজরদারি আরও বেড়েছে। বিশেষত করোনা আক্রান্ত লন্ডন থেকে ফেরা যুবক যেভাবে নিজের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় দেরি করেছেন, তার জেরে আরও কড়া হয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। এবার বিদেশ থেকে ফেরা যে কোনও ব্যক্তির রেকর্ড দেখা হচ্ছে। রীতিমত খুঁজে খুঁজে তাঁদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পরিকল্পনা করছেন দপ্তরের আধিকারিকরা। সেইমতো কর্মীদেরও দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সাহায্য নেওয়া হয়েছে পুলিশেরও। সল্টলেক এবং যোধপুর পার্কের কয়েকটি বাড়ি ঘুরে বিদেশ ফেরত বাসিন্দাদের খোঁজ নেওয়া শুরু করেছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে গুজব ছড়ালেই কড়া শাস্তি! হুঁশিয়ারি সিপি অনুজ শর্মার]

৫০৩, যোধপুর পার্ক এবং G-20 কাটজুনগর, এই দুই বাড়িতে রোম থেকে ফিরেছিলেন সদস্যরা। তাঁদের খোঁজ করে পুলিশ বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভরতি করা হয় শারীরিক পরীক্ষার জন্য। অন্যদিকে, সল্টলেক এজে ব্লকের এক ব্যক্তি লন্ডন থেকে ফিরেছেন গত ১২ তারিখ। আজ তাঁর বাড়িতে গিয়েছিল বিধাননগর পুরসভার একটি দল। প্রাথমিকভাবে থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে শারীরিক পরীক্ষা করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ। কোনও উপসর্গও নেই। তা সত্ত্বেও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ওই যুবক এবং তাঁর বাবাকে কয়েকদিনের জন্য আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পুরসভা সূত্রে খবর, বিধাননগরে অন্তত ৭৩ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে, যাঁরা করোনা আক্রান্ত দেশগুলি থেকে ফিরেছেন। তাঁদের প্রত্যেকের উপরেই নজর রাখছে স্বাস্থ্য দপ্তর।

[আরও পড়ুন: মোদির নির্দেশ, আপাতত রাজনৈতিক কর্মসূচিতে ‘না’ বঙ্গ বিজেপির]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে