৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

গৌতম ব্রহ্ম ও অর্ণব আইচ: এনআরএস কাণ্ডের প্রতিবাদে যখন কর্মবিরতিতে শামিল জুনিয়র ডাক্তাররা, ঠিক তখনই হস্টেলে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় উত্তেজনা ছড়াল ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। বুধবার গভীর রাতে আগুন লেগে যায় লিন্টন স্ট্রিটে জুনিয়র ডাক্তারদের হস্টেলে। অল্প কিছুক্ষণের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে দমকল। হতাহতের কোনও খবর নেই।

[আরও পড়ুন: কর্মবিরতিতে অনড় জুনিয়র ডাক্তাররা, এনআরএসের সামনে অবরোধ রোগীর পরিজনদের]

লিন্টন স্ট্রিটে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের পড়ুয়াদের হস্টেলটি চারতলা। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, বুধবার রাত প্রায় দেড় নাগাদ হস্টেলে লক্ষ্য কেরোসিন বোমা ছুোড়ে একদল দুষ্কৃতী। আগুন লেগে যায় হস্টেলের একতলায় দুটি ঘরে। ঘটনার সময়ে ঘর দুটি অবশ্য খালি ছিল। জুনিয়র ডাক্তারদের হস্টেলে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। প্রথমে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলেই পৌঁছায় দমকলের দুটি ইঞ্জিন। মিনিট দশেকের মধ্যে আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়। ঘটনায় কেউ হতাহত হননি বলে জানা গিয়েছে।

কিন্তু ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের জুনিয়র ডাক্তারদের হস্টেলের কীভাবে আগুন লাগল? এটা কি নেহাতই দুর্ঘটনা নাকি ইচ্ছাকৃতভাবে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে? খতিয়ে দেখছে বেনিয়াপুকুর থানার পুলিশ। এদিকে এনআরএস কাণ্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবারও সরকারি হাসপাতালে কর্মবিরতি চালিয়ে যাচ্ছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। কর্মবিরতির জেরে রোগীদের দুর্ভোগ চরমে। চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে সকালে এনআরএস হাসপাতালে সামনে পথ অবরোধ করেন রোগীর পরিজনেরা। পরে পুলিশ অবরোধকারীদের হটিয়ে দেয়।  

[আরও পড়ুন:  পুলিশ কেন ডাক্তারদের নিরাপত্তা দিতে পারল না?’ প্রশ্ন তুললেন মন্ত্রীকন্যা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং