Advertisement
Advertisement
রামচন্দ্র গুহ

‘গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ’, ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে আটক নিয়ে নিন্দায় বিদ্বজ্জনরা

নিন্দায় সরব সুগত বসু ও নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ির মতো ব্যক্তিরা।

Intellectuals protest arrest of historian Ram Chandra Guha
Published by: Bishakha Pal
  • Posted:December 19, 2019 3:09 pm
  • Updated:December 19, 2019 9:08 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বেঙ্গালুরুতে ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে আটকের প্রতিবাদে দেশজুড়ে আওয়াজ তুলেছেন বিদ্বজ্জনেরা। ব্যতিক্রম নন বাঙালি জ্ঞানীগুণী ব্যক্তিরাও। ইতিহাসবিদ সুগত বসু, পুরাণবিদ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি, পরিচালক-অভিনেত্রী অপর্ণা সেন-সহ অনেকেই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটারে লিখেছেন, এই সরকার ছাত্রদের ভয় পায়। সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে ইতিহাসবিদরা কথা বললেও ভয় পায় সরকার। 

Advertisement

সুগত বসু আরও বলেছেন, যারা এসব আইন পাশ করছে, তারা ভয় দেখিয়ে কার্যোদ্ধার করছে। ভয় দেখিয়ে শাসন করছে তারা। যারা ক্ষমতায় আছে, তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। তারা ‘নির্বাচনী পাটিগণিতে’ বিশ্বাস করে। সংখ্যাগরিষ্ঠতায় বিশ্বাস করে। আর সেই কারণেই পক্ষপাতদুষ্ট আইন পাশ করছে। এ বছর লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতায় আসার পর থেকে এমন কাণ্ড করছে তারা। তাই তো কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের মতো বিষয় নিয়ে আসছে। আজ এসবের বিরুদ্ধে আওয়াজ উঠেছে। গণতান্ত্রিক আন্দোলন করেই এদের পরাস্ত করা যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।  

[ আরও পড়ুন: সাহিত‌্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পেলেন বাঙালি অধ্যাপক চিন্ময় গুহ, তালিকায় শশী থারুরও ]

ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে আটক করার তীব্র নিন্দা করেছেন পুরাণবিদ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি। তিনি বলেন, প্রতিবাদ নয়, ঘৃণা বোধ হচ্ছে তাঁর। “এরা গণতান্ত্রিক সরকার নয়। দেশ যেদিকে এগোচ্ছে তাতে হিটলারি শাসন অবধারিত।” বলেন তিনি। জানান, সংবিধান অনুযায়ী প্রতিবাদ করার ক্ষমতা রয়েছে দেশবাসীর। সেটাই তারা করছে। কিন্তু সরকার গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করছে। নাগরিকদেরও কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। তবে নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি জানিয়েছেন, রামচন্দ্র গুহকে যে পুলিশ চিনল না, এটাই তো লজ্জার। এমন এক ইতিহাসবিদকে চেনা উচিত ছিল। কেন তাঁর মতো মানুষ প্রতিবাদে নেমেছেন, ভাবা উচিত ছিল। বোঝাই যাচ্ছে, দেশের জ্ঞানীগুণী মানুষদের এরা চেনে না। তাঁদের মানে না। তাঁর মতে, পরিস্থিতি যেদিকে এগোচ্ছে, তাতে গণতন্ত্র উলটে যাওয়ার পথে। “এদের কবরে পাঠানো যাবে না। কিন্তু এদের ধর্মান্ধতার কবর থেকে ওঠানোও যাবে না।” বলেন পুরাণবিদ।

অপর্ণা সেন বলেন, “অত্যন্ত অন্যায় হয়েছে। মানছি ১৪৪ ধারা জারি ছিল ওই জায়গায়। কিন্তু ১৪৪ ধারা জারি হবে কেন? এভাবে প্রতিবাদ আটকানো যায় না।” কমল হাসানও টুইটারে ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। লিখেছেন,

বেঙ্গালুরুতে ১১ টা থেকে প্রতিবাদ মিছিল শুরু হওয়ার কথা থাকলেও নিষেধাজ্ঞা জারি করে পুলিশ। এ প্রসঙ্গে বেঙ্গালুরুর পুলিশ কমিশনার ভাস্কর রাও জানান, “পুলিশি অনুমতি ছাড়াই প্রতিবাদ মিছিল করা হচ্ছে।” সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে আটক করা হয়। তিনি টুইট করে গোটা ঘটনার কথা জানিয়েছেন। তিনি এদিন সকালে বেঙ্গালুরুর টাউন হলের সামনে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন। সেই সময় তাঁকে আটক করা হয়।তাঁকে রীতিমতো টানা হ্যাঁচড়া করে পুলিশ।

[ আরও পড়ুন: CAA’র প্রতিবাদে মহামিছিল নাগরিক সমাজের, পথে নামলেন অপর্ণা-কৌশিক ]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ