২২  আশ্বিন  ১৪২৯  শুক্রবার ৭ অক্টোবর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

এবার কলকাতা মেট্রোয় জুড়ছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির কোচ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 17, 2017 3:52 pm|    Updated: July 17, 2017 3:52 pm

Kolkata metro to get two new ac rakes

আকাশনীল ভট্টাচার্য:  কলকাতার মেট্রো রেলের পালকে জুড়তে চলেছে নয়া পালক। নতুন কোচ আসছে মেট্রো রেলে।পুজোর আগেই কলকাতার ট্র্যাকে চলবে সেই রেক। অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন এই নতুন রেকে যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের যাবতীয় ব্যবস্থা থাকছে।

[জানেন, কোথায় আছে বিশ্বের সবথেকে পুরনো নিরামিষ রেস্তরাঁ?]

নতুন এই রেকে যাত্রীদের দাঁড়ানোর জন্য যে জায়গা থাকবে, তা যথেষ্ট প্রশস্ত। মেঝেতে ম্যাট ফিনিশ করা হয়েছে যাতে কেউ পিছলে না যান। এখনকার রেকগুলিতে এসি মেশিনের হাওয়া বেরোনোর জায়গা ছিল কামরার মাঝখানে। মেট্রো রেল সূত্রে খবর নতুন রেকগুলি সেন্ট্রাল এসি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে। সকারগুলি হবে রবারের। ফলে যাত্রীদের ঝাঁকুনি লাগার সম্ভাবনা অনেক কমে যাচ্ছে। আগের কামরাগুলিতে চারটি করে এলইডি লাইট লাগানো থাকত। এই কোচে থাকছে ৮টি লাইট। দুর্ঘটনা ঘটলে যাত্রীরা এবার সরাসরি গার্ড ও ড্রাইভারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন। এমনকী যোগাযোগের ব্যবস্থা থাকছে কন্ট্রোল রুমের সঙ্গেও।

[মহাকাশ থেকে পৃথিবীতে ভেসে আসছে অজানা সংকেত!]

প্রতিটি কোচে চারটি করে টকব্যাক সিস্টেম রয়েছে। ভেস্টিবিউলগুলো চওড়া করা হয়েছে, যাতে ট্রেন চলার সময় এক কামরা থেকে আরেক কামরায় একাধিক লোক যাতায়াত করতে পারে। ড্রাইভারের কাছে এমন ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে কোনও কোচে সমস্যা হলে সেই কোচকে ট্রেন থেকে আলাদা করে দেওয়া যাবে। আগের রেকগুলোয় ট্রেনে চলার সময় তাপ নির্গমন  হত অনেক বেশি। তাই ট্রেন গরম হয়ে থাকত। এবার তা হবে না বলে জানাচ্ছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ।

[এবার বন্ধ হতে চলেছে দেশের বেশ কয়েকটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক!]

গত ডিসেম্বরে ওই রেক আসার কথা থাকলেও নানা কারণে সাত মাস পরে ওই রেক এসে পৌঁছচ্ছে। পরের ধাপে আরও একটি রেক আসার কথা। নতুন দু’টি রেক হাতে পেলে কলকাতা মেট্রোয় এসি রেকের সংখ্যা দাঁড়াবে ১৫। মেট্রো সূত্রে খবর, বাহ্যিক আকৃতি ছাড়াও রুফ মাউন্টিং ইউনিট, ব্রেকিং সিস্টেম, ভেস্টিবিউল, সাসপেনশন-সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক প্রযুক্তিগত বদল আনা হয়েছে রেকগুলিতে। রিজেনারেটিভ ব্রেকিং সিস্টেম ব্যবহার করার ফলে অনেকটাই বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে।

[নারকো টেস্টে আপত্তি ঋতুপর্ণার পরিচারিকার, বাড়ছে বিতর্ক]

তবে রেক এসে পৌঁছনোর পরে তা যাত্রী পরিবহণের উপযোগী করে তুলতে আরও মাসখানেক লাগবে। থার্ড রেল কারেন্ট কলেক্টর (টিআরসিসি) ইউনিট বসানো-সহ আরও বেশ কিছু কাজ করার জন্য মাস খানেক লাগবে। একই সঙ্গে বিভিন্ন ধাপে একাধিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ওই রেক যাত্রী পরিবহণের কাজে নামানো হবে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে