৭ মাঘ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উপনির্বাচনে ভরাডুবির পর রাজ্য বিজেপির ‘মেরামতি’ শুরু করল নেতৃত্ব। একুশের বিধানসভা ভোটের লক্ষ্যে ঘর গোছানোর কাজ শুরু করেছে গেরুয়া শিবির। সাত জেলায় দলীয় সভাপতি পরিবর্তনের পর রাজ্যে দলের নয়া নির্বাচনী পর্যবেক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি। নয়া নির্বাচনী পর্যবেক্ষক হিসাবে বাংলায় আসছেন পি মুরলীধর রাও। আর কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে নির্বাচনী পর্যবেক্ষক করে পাঠানো হচ্ছে তামিলনাড়ুতে।

ইদানীং বঙ্গ বিজেপিতে দক্ষিণের নেতাদের উপর নির্ভরতা বাড়ছে। রাজ্য বিজেপির সহ-পর্যবেক্ষকের দায়িত্বে রয়েছেন দক্ষিণেরই নেতা অরবিন্দ মেনন। বাংলার দায়িত্ব পাওয়ার পর ইতিমধ্যে বাংলা ভাষা রপ্ত করে ফেলেছেন। অরবিন্দ মেনন দায়িত্বে আসার পর কৈলাসের দায়িত্ব কিছুটা কমে। দলীয় সূত্রে খবর, নির্বাচনী পর্যবেক্ষক হিসাবে মুরলীধর আসায় কৈলাস নির্ভরতা কমবে। একুশের আগে সেটাই রণকৌশলের একটা অংশ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

[আরও পড়ুন: প্রমাণ মেলেনি ধর্ষণের! মালদহ কাণ্ডে পুলিশকে তুলোধোনা লকেটের]

প্রসঙ্গত, বিজেপির সাংগঠনিক নিয়ম অনুযায়ী, যে নেতা যে রাজ্যের পর্যবেক্ষক পদে থাকেন। রাজ্য কমিটির নির্বাচনের সময় তিনি নির্বাচন নিয়ে কোনও দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠতে পারে। তাই এমনটাই নিয়ম গেরুয়া শিবিরে। তাই নির্বাচনী পর্যবেক্ষক হিসাবে রাজ্যে আসছেন মুরলীধর রাও। যদিও যেভাবে মণ্ডল সভাপতি নির্বাচন ঘিরে জেলায় জেলায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছবি প্রকাশ্যে এসেছে তাতে অস্বস্তি বেড়েছে দলীয় নেতৃত্বের। এরপর রাজ্য কমিটির নির্বাচনেও যদি তেমনই ঘটনা ঘটতে থাকে তাহলে একুশের আগে জনমানসে বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়তে পারে, এমনটাই মনে করছে হাইকমান্ড।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং