BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বিদ্যাসাগরের নতুন মূর্তি গড়ে দেবে রাজ্য সরকার

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 29, 2019 12:11 pm|    Updated: May 29, 2019 12:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মূর্তিচর্চায় যেন বিরাম নেই৷ সপ্তাহ তিন আগে কলকাতায় নির্বাচনী মিছিল থেকে বিদ্যাসাগর কলেজে মূর্তি ভাঙার ঘটনার রেশ যেন কিছুতেই কাটছে না৷ কে বা কারা মূর্তি ভেঙেছে, কারা জড়িত, কীভাবে ঘটনা ঘটল – এসব কিছুর সত্য উদ্ঘাটনে যখন তেড়েফুঁড়ে মাঠে নেমেছে রাজ্য সরকারের গঠিত ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি, তখন ফের শিক্ষামন্ত্রী ঘোষণা করে দিলেন, বিদ্যাসাগরের ভেঙে যাওয়া মূর্তিটি গড়ে দেবে রাজ্য সরকারই৷ সেইসঙ্গে জুড়লেন, প্রেসিডেন্সির প্রবেশপথেও বসবে মূর্তি৷ তবে তা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের৷

[আরও পড়ুন: শহরে অষ্টমবার সফল হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপন, নবজীবন পেলেন দমদমের অনুষা]

লোকসভা নির্বাচনের শেষদফার আগে কলকাতায় বিজেপির রাজনৈতিক মিছিল থেকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা এবং বিদ্যাসাগর কলেজে মূর্তি ভাঙার ঘটনা ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজনৈতিক পরিস্থিতি৷ মনীষীর অবমাননার প্রতিবাদে সরব হয়ে পথে নামে বাংলার সংস্কৃতি মহল৷ নির্বাচনের সঙ্গে কার্যত জুড়ে যায় বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনা৷ এমনকী ১৯ মে, কলকাতায় শেষ দফার নির্বাচনের আগে মূর্তি একটি ইস্যু হয়ে উঠতে চলেছে, এমন ইঙ্গিতও ছিল৷ ভোটবাক্সে তা কতখানি প্রভাব ফেলেছে, সে সম্পর্কে বিশদ তথ্য না মিললেও, ভোটের ফল অনুযায়ী, ওই লোকসভা কেন্দ্রের রায় গিয়েছে তৃণমূলের পক্ষেই৷ কাজেই বিদ্যাসাগরের ভগ্ন মূর্তিকেই ফ্যাক্টর ধরছেন অনেকে৷

ঘটনার পরপর তীব্র নিন্দা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, বিদ্যাসাগর কলেজের ভাঙা মূর্তির জায়গায় তিনি পঞ্চধাতুর মূর্তি গড়ে দেবেন৷ তাঁর ঘোষণায় ‘ঔদ্ধত্য’ দেখেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি পালটা বলেছিলেন, মূর্তি সরকারই তৈরি করে দেবে৷ কারও সাহায্যের প্রয়োজন নেই৷ আর বিষয়টি যেহেতু কলেজের, তাই তার দায়িত্ব বর্তেছিল শিক্ষা দপ্তরের উপরেও৷ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় একাধিকবার ঘোষণা করেছেন, বিদ্যাসাগর কলেজে শুধু ভাঙা মূর্তিটি নতুন করে গড়ে দেওয়া হবে, তাই-ই নয়৷ সেখানে পূর্বপরিকল্পনামতো বিদ্যাসাগরের নামে তৈরি করা হবে মিউজিয়াম৷ মঙ্গলবার তিনি বাড়তি ঘোষণা করেন, প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশপথেও বসানো হবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রস্তরমূর্তি৷ আর একাধিকবার রাজ্যের তরফে এমন ঘোষণা একটা বিষয় ক্রমশই স্পষ্ট হচ্ছে৷ মূর্তি-রাজনীতি আরও প্রকটভাবে হয়ে দেখা দিচ্ছে বাংলার মাটিতে৷   

[আরও পড়ুন: রাজীব এড়িয়ে গেলেও সময়ের আগেই সিবিআই দপ্তরে অর্ণব ঘোষ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement