২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গেরুয়াপন্থী ছাত্র সংগঠন আখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ (এবিভিপি)-র নবীনবরণ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়৷ এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বৃহস্পতিবার দুপুরে যাদবপুরে আসেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়৷ অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনেই তাঁর পথ আটকায় বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা৷ বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্তা করা হয়৷ ধস্তাধস্তিতে ছিঁড়ে যায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর জামা৷

[ আরও পড়ুন: এনআরসি আতঙ্ক কাটাতে আইনি সহায়তা কেন্দ্র খোলার উদ্যোগ তৃণমূলের, জানালেন সিদ্দিকুল্লা ]

সূত্রের খবর, এদিনের ‘নবীনবরণ’ অনুষ্ঠানে কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচিতে নয়, আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে এসেছিলেন বাবুল সুপ্রিয়৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়কে সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটি ঘোষণার দাবিতে শিক্ষক সংগঠন জুটার তরফে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কাছে একটি আবেদন পত্র জমা দেওয়ারও পরিকল্পনা ছিল৷ কিন্তু অভিযোগ, তাঁকে অনুষ্ঠান মঞ্চ পর্যন্ত যেতে দেয়নি বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা৷ গেটের সামনেই আটকে দেওয়া হয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে৷ রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর৷ প্রথমে বাবুল সুপ্রিয়র নিরাপত্তারক্ষীর সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয় বাম ছাত্রদের৷ এরপর কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকেও ধাক্কা দেওয়ার এবং তাঁর জামা ছিঁড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে যাদবপুরের পড়ুয়াদের একাংশের বিরুদ্ধে৷

[ আরও পড়ুন: জট কাটিয়ে এসেছে নথি, আলিপুর আদালতে শীঘ্রই শুরুর পথে রাজীব মামলা

এই ঘটনায় প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী৷ বারবার ছাত্রদের সংযত হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি৷ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মতো ব্যক্তিত্ব তাঁদের নেতা, এই উদাহরণ টেনেও বাম পড়ুয়াদের শান্ত করার চেষ্টা করেন বাবুল সুপ্রিয়৷ সূত্রের খবর, তাতেও কোনও কাজ হয়নি৷ বাবুল সুপ্রিয়কে যাদবপুরে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে, সাফ জানিয়ে দেয় তারা৷ পড়ুয়াদের অভিযোগ, বাবুল সুপ্রিয়র তরফে তাদের উপর আগে হাত তোলা হয়েছে৷ যদিও সেই দাবি উড়িয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী৷ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এখনও রণক্ষেত্র যাদবপুর৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ তাঁরাই পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং