BREAKING NEWS

৬ মাঘ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

প্রতি পদে কেন্দ্রের সঙ্গে তুলনা, একুশের আগে ‘জনমুখী’ বাজেট পেশ অমিত মিত্রর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: February 10, 2020 3:53 pm|    Updated: February 10, 2020 4:57 pm

West Bengal Budget 2020: Have a look on key factors

রাহুল চক্রবর্তী: একুশের বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্য সরকারের পূর্ণাঙ্গ বাজেট। তা কতটা ভোটমুখী হয়, সেদিকে নজর ছিল সকলেরই। প্রত্যাশা সত্যি করে একেবারেই জনমোহিনী বাজেট ঘোষণা করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। পদে পদে তুলনা করলেন কেন্দ্রীয় বাজেটের সঙ্গে। পরিসংখ্যান উল্লেখ করে বোঝালেন, কেন্দ্রের তুলনায় আর্থিকভাবে কতটা এগিয়ে বাংলা। ২০২০-২১ অর্থবর্ষে মোট ৯ লক্ষ ১১ হাজার কর্মসংস্থানের জন্য ২,৫৫,৬৭৭ হাজার কোটি টাকার বরাদ্দ করলেন অর্থমন্ত্রী। ঘোষণা করা হল বেশ কয়েকটি নতুন প্রকল্পের। একঝলকে দেখে নেওয়া যাক কোথায় কত টাকা বরাদ্দ হল – 

[আরও পড়ুন: ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত বিনামূল্যে বিদ্যুৎ! রাজ্য বাজেটে বড় ঘোষণা অমিত মিত্রর]

  • ২০২০-২১এ রাজ্য বাজেটে নতুন প্রকল্পের সংখ্য়া -১১
  • কর্মসাথী প্রকল্প: রাজ্যের বেকার যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থানের জন্য ঘোষিত নতুন প্রকল্প। ৯ লক্ষ ১১ হাজার কর্মসংস্থানের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ২,৫৫,৬৭৭ হাজার কোটি টাকা।
  • বন্ধু প্রকল্প: রাজ্যের তফসিলি জাতির বয়স্কদের জন্য ভাতা ঘোষণা, মাসে ১০০০ টাকা করে পাবেন। উপকৃত হবেন ২১ লক্ষ মানুষ। মোট বরাদ্দ ২৫০০ কোটি টাকা।
  • জয় জহর প্রকল্প: আদিবাসী ও তফসিলি উপজাতির বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের জন্য চালু এই প্রকল্প। মাসে ১০০০ টাকা করে মিলবে ভাতা। বরাদ্দ করা হয়েছে ৫০০ কোটি টাকা।
  • চা-সুন্দরী প্রকল্প: চা বাগানের সমস্ত গৃহহীন শ্রমিককে সরকারি খরচে স্থায়ী বাড়ি তৈরি করে দেওয়া হবে এই প্রকল্পে। বরাদ্দ ৫০০ কোটি টাকা। চা বাগানগুলিতে কৃষিকর সম্পূর্ণ ছাড়।
  • হাসির আলো প্রকল্প: নিম্নবিত্তদের জন্য তিন মাসে ৭৫ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎ মিলবে নিখরচায়। এর জন্য বরাদ্দ ৩০০ কোটি টাকা।
  • বাংলা সহায়তা প্রকল্প: অনলাইনের মাধ্য়মে বিভিন্ন সরকারি কাজে জনগণকে সাহায্য়ের জন্য ২৩ টি জেলা, ৬৬টি এসডিও , ১৫০০টি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে, ২৪৪৭ সহায়তা কেন্দ্র চালু। ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • কলকতা, দুর্গাপুর, শিলিগুড়িতে ৩টি সিভিল সার্ভিস অ্যাকাডেমি, আরও ৩টি নতুন বিশ্ববিদ্যালয়ে তৈরি হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প বিস্তারে আগামী তিন বছরে আরও ১০০ টি ক্লাস্টার তৈরি।
  • জমে থাকা মামলা নিষ্পত্তির জন্য নতুন করে ফাস্ট ট্র্যাক কোর্ট তৈরি।

বাজেটে আয় বৃদ্ধির দিশাও আছে। পরিসংখ্যান দিয়ে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, বকেয়া করের অনেকটাই আদায় হয়েছে। আরও সহজসাধ্য হচ্ছে করদানের প্রক্রিয়া। তাতে কর দেওয়ার উৎসাহ বাড়বে বলে মনে করছেন অমিত মিত্র। এছাড়া গত ৮ বছরের বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিট থেকে মোট ২২২৬ কোটি টাকা বিনিয়োগ এসেছে বলে দাবি। ১০০ দিনের কাজ, গ্রামীণ গৃহ নির্মাণ, রাস্তা নির্মাণ, স্কিল ডেভেলপমেন্ট, ই-টেন্ডারিংয়ে বাংলা দেশের মধ্যে শীর্ষে, সেকথা কেন্দ্রও মেনে নিয়েছে বলে দাবি করে অমিত মিত্রর বক্তব্য, এতেই স্পষ্ট বাংলার অবস্থা কতটা ভাল। মোট কথা, বিধানসভা ভোটের আগে একেবারেই জনমুখী বাজেটে জোর দিল রজ্য সরকার। অর্থমন্ত্রীর বাজেট শুনে খুশি মুখ্যমন্ত্রী।

[আরও পড়ুন: রাজ্য বাজেটে বড় চমক, বিনামূল্যে একগুচ্ছ সুবিধা পাবেন অসংগঠিত শ্রমিকরা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে