৩২ শ্রাবণ  ১৪২৬  রবিবার ১৮ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আধুনিক জীবনের প্রতি মুহূর্তের সঙ্গে জড়িয়ে ফেসবুক। ঘুম থেকে ওঠার পর থেকে ঘুমতে যাওয়া পর্যন্ত ফুরসত মিলতেই নজর ফেসবুকে। বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটানো হোক বা রাজনৈতিক বিশ্লেষণ। সবই মুঠোফোনে সাঙ্গ। কিন্তু শুধুই কী সুবিধা? অসুবিধাও তো রয়েছে। একটি বিতর্কিত পোস্ট এক মুহূর্তে শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করে তুলতে পারে। যা কখনই কাম্য নয়। সেই সঙ্গে রয়েছে ভুয়ো অ্যাকাউন্টের দাপাদাপি। নিজের পরিচয় আড়ালে রেখেই যারা উত্তপ্ত করে তোলে পরিস্থিতি। 

[আরও পড়ুন:  ভারত-পাক সম্পর্কে ফাটল রুখতে বিশেষ উদ্যোগ ফেসবুকের]

সত্যির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আপনার ফেসবুক ওয়ালে ঘুরে বেড়ায় ভুয়ো খবর। যা নিয়ে দানা বাঁধে বিতর্ক। তর্কে জড়িয়ে পড়েন অনেকেই। ভোটের মরশুমে যেন তা কয়েকগুন বেড়ে গিয়েছিল এক লাফে। বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ে নানারকম তথ্য ঘোরাফেরা করতে শুরু করেছিল ফেসবুক ওয়ালে। যা আপনার পক্ষে ক্ষতিকর, সমাজের পক্ষে ক্ষতিকর। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছিল ভুয়ো অ্যাকাউন্টের সংখ্যা। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সেই সব অ্যাকাউন্টের মালিকের কোনও হদিশও মিলছিল না।পরিস্থিতির জটিলতা বুঝতে পেরে সেই সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেয় জুকারবার্গের কোম্পানি।আর তাতে সফলতাও পেল ফেসবুক। 

[আরও পড়ুন: ভুয়ো খবর পোস্ট করার আগে দু’বার ভাবুন, আপনার উপর নজর ফেসবুকের]

জানা গিয়েছে, ফেসবুক পোস্টের ক্ষেত্রে বেশ কিছু নির্দেশিকা বেধে দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। যার মাধ্যমে অপ্রীতিকর বা অন্যের জন্য আপত্তিকর কোনও তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে বাধাপ্রাপ্ত হন ফেসবুক ব্যবহারকারী। সেই সঙ্গে ফেসবুকের ভুয়ো অ্যাকাউন্টগুলি নিষ্ক্রিয় করে দেওয়ার জন্য ফেসবুকের তরফে ৩০ হাজার লোক কাজ করেছে। এবং এরা প্রতিনিয়ত ফেসবুকের অ্যাকাউন্টগুলির উপর নজর রেখেছে। ভুয়ো পরিচয়ে ফেসবুক ব্যবহার করলে তা দ্রুততার সঙ্গে বন্ধ করা হয়েছে। আপনার অ্যাকাউন্টটি যদি ভুয়ো হয়, তাহলে যে কোনও মুহূর্তে সেটিও বন্ধ হতে পারে। মোট কথা ভাবমূর্তি স্বচ্ছ রাখতে এবং ভুয়ো খবর আটকাতে প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে ফেসবুক।         

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং