৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo দিল্লি ২০২০ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (CAA) প্রতিবাদে উত্তাল গোটা দেশ। বিভিন্ন প্রান্তের বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া থেকে শুরু করে বিনোদুনিয়ার সেলিব্রিটি, প্রত্যেকেই এই আইনের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন। আর দেশজুড়ে এই বিক্ষোভের মধ্যেই এবার CAA-র সমর্থনে ডিজিটাল প্রচারে নামলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। টুইটারে নতুন হ্যাশট্যাগ তৈরি করে এই আইনের প্রচার শুরু করলেন তিনি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় #IndiaSupportsCAA তৈরি করে জনসাধারণের কাছে নাগরিকত্ব আইনের বিষয়ে সঠিক ধারণা পৌঁছে দিতে চান মোদি। তাঁর মতে, আইনটি নিয়ে অনেকের মধ্যেই অনেক ভুল ধারণা রয়েছে। এই আইনে কারও থেকে নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া হয় না। এ বিষয়ে তাঁদের অবগত করা প্রয়োজন।

[আরও পড়ুন: Airtel গ্রাহকদের জন্য ফের ধাক্কা, বাড়ল মাসিক ন্যূনতম রিচার্জ প্ল্যানের মূল্য]

প্রধানমন্ত্রী টুইট করেন, “#IndiaSupportsCAA। ধর্মীয়ভাবে নিপীড়িত মানুষদের নাগরিকত্ব দিতে CAA আনা হয়েছে। কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার জন্য নয়। আপনার স্মার্টফোনে NaMo App-এ ভলান্টিয়ার মডিউলের ভয়েস সেকশনে গিয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নিন। এই হ্যাশট্যাগ সহযোগে লেখা, ভিডিও, গ্রাফিক্স-সহ সবকিছুই রয়েছে। শেয়ার করুন আর CAA-কে সমর্থন করুন।”

এখানেই শেষ নয়, অন্য একটি টুইটার হ্যান্ডেলে আধ্যাত্মিক গুরু জাগ্গি বসুদেবের একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। যেখানে CAA নিয়ে বক্তব্য রাখছেন তিনি। সেখানের আইনের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে। সেই সঙ্গে এই নিয়ে যে গুজব চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে, সে বিষয়েও মানুষকে সতর্ক করেন তিনি।
CAA অনুযায়ী, ২০১৫ সালের আগে পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে ভারতে আসা ধর্মীয়ভাবে নিপীড়িত হিন্দু, শিখ, জৈন, বৌদ্ধ, পারসি এবং খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের শরণার্থীরা আবেদনের ভিত্তিতে এদেশের নাগরিকত্ব পাবেন। কিন্তু নাগরিকত্ব আইনকে ঘিরে দেশজুড়ে বিক্ষোভ এখনও থামেনি। CAA-হিংসায় এখনও পর্যন্ত গোটা দেশে কমপক্ষে ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

[আরও পড়ুন: ইন্টারনেট বন্ধের জেরে কোটি কোটি টাকা লোকসান, CAA চাপে টেলিকম সংস্থাগুলি]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং