BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

TikTok-কে পাল্লা দেওয়া হল না, গুগল প্লে-স্টোর থেকে সরল জনপ্রিয় Mitron অ্যাপ

Published by: Sulaya Singha |    Posted: June 2, 2020 8:41 pm|    Updated: June 6, 2020 1:51 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিনা অ্যাপ TikTok-কে টেক্কা দিতে ভারতীয় বাজারে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে ওঠে Mitron অ্যাপ। কয়েক মাসের মধ্যেই লক্ষ লক্ষ মানুষ ডাউনলোড করায় গুগল প্লে-স্টোরে অন্যতম ট্রেন্ডিংয়ে পরিণত হয় অ্যাপটি। কিন্তু TikTok-এর বিকল্প হয়ে ওঠার আগেই ভ্যানিস মিত্রোঁ। গুগল অ্যাপ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে অ্যাপটি। তবে ইতিমধ্যেই যাঁদের স্মার্টফোনে অ্যাপটি ইনস্টল করা আছে, তাঁরা এটি ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু প্রশ্ন হল, হঠাৎ কী কারণে জনপ্রিয় এই অ্যাপ সরিয়ে দিল গুগল?

অ্যাপটি আত্মপ্রকাশ করার পর শোনা যায়, এটি স্বদেশি অ্যাপ। চিনা অ্যাপ বয়টক করে তাই এই অ্যাপটি ডাউনলোডের হিড়িক পড়ে যায়। কিন্তু পরে জানা যায়, পাকিস্তানি সংস্থা Qboxus-এর তৈরি একটি অ্যাপই রিব্র্যান্ড করে এসেছে Mitron। এটি প্লে-স্টোর থেকে সরিয়ে ফেলার মূল কারণ হিসেবে গুগল জানিয়েছে, কোনওরকম পরিবর্তন না করে অন্য অ্যাপের থেকে কনটেন্ট নিয়ে অ্যাপ ডেভেলপ করা হলে তা গুগলের পলিসি বিরুদ্ধ। ঠিক সেটাই করেছে মিত্রোঁ। সেই কারণেই আর প্লে-স্টোরে ঠাঁই হল না তার।

[আরও পড়ুন: এই ওষুধেই সুস্থ হচ্ছেন করোনা রোগীরা, ‘রেমডেসিভির’ ব্যবহারের অনুমতি দিল ভারত]

যাঁরা অ্যাপ তৈরি করেন, তাঁরা সাধারণত কম খরচে সোর্স কোড কেনেন। Mitron অ্যাপের জন্য পাক সংস্থা থেকে মাত্র ২৫০০ টাকায় সোর্স কোড কেনা হয়েছিল। কিন্তু ততদূরই। অরিজিন্যাল অ্যাপের সঙ্গে এর হুবহু মিল। না কিছু বদলানো হয়েছে। আর না কোনও কনটেন্ট যোগ করা হয়েছে। আইআইটি রুরকির কয়েকজন প্রাক্তন পড়ুয়া অ্যাপটি কিনে ডেভেলপ করে Mitron নাম দেন। যা জনপ্রিয় হতে একেবারেই বিশেষ সময় নেয়নি। আর সেটাই কাল হয়ে দাঁড়ায়। এই অ্যাপের বেশ কিছু গলদ সাইবার বিশেষজ্ঞদের চোখে পড়ে যায়। অনেক পরীক্ষানিরীক্ষা করে তাঁরা জানান, এই অ্যাপ ব্যবহার বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ অ্যাপের সোর্স কোডের উপর কোনও অতিরিক্ত ফায়ারওয়াল বা সফটওয়্যার সিকিওরিটি নেই। যখন-তখন ফাঁস হয়ে যেতে পারে ব্যক্তিগত তথ্য। যদিও এমন কোনও ঘটনা এখনও সামনে আসেনি।

Mitron অ্যাপের ইন্টারফেস এবং পাকিস্তানের সংস্থাটির অ্যাপের ইন্টারফেস একেবারে একইরকম। আর সেখানেই সবচেয়ে বড় আপত্তি গুগলের। তাদের পলিসি লঙ্ঘন করার জন্যই অ্যাপটিকে সাসপেন্ড করারই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় শেষমেশ।

[আরও পড়ুন: ‘বয়কট চিন’ অভিযানে জনপ্রিয়তার শিখরে Remove China Apps, কীভাবে কাজ করে অ্যাপটি?]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement