BREAKING NEWS

১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বুধবার ২ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জরুরি কাজে বাইরে বেরতেই হবে? জেনে নিন লকডাউনে কীভাবে মিলবে ই-পাস

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 15, 2020 5:33 pm|    Updated: April 15, 2020 5:33 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা মোকাবিলায় আগামী ৩মে পর্যন্ত দেশজুড়ে লকডাউনের মেয়াদ বাড়িয়েছে কেন্দ্র। জরুরি পরিষেবা ছাড়া বাকি সব গতিবিধিতেই কড়া নজর রাখা হচ্ছে সরকারের তরফে। এমন পরিস্থিতিতে কোনও এমার্জেন্সি থাকলে কিংবা জরুরি পরিষেবা দেওয়ার জন্য অনেককেই বাইরে বেরতে হচ্ছে। সেই সব মানুষগুলোর যাতে গন্তব্যে পৌঁছতে কোনও সমস্যা না হয়, তার জন্য দেশের একাধিক জেলায় চালু করা হয়েছে ই-পাস। যাকে বিভিন্ন রাজ্যে COVID-19 এমার্জেন্সি পাস অথবা লকডাউন পাস হিসেবেও পরিচিত। অর্থাৎ এই পাসটি সঙ্গে থাকলে পুলিশ পথ আটকাবে না।

তবে প্রশ্ন হল কীভাবে পাওয়া যাবে এই পাস? অনলাইনে কিংবা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে কীভাবে জোগাড় করবেন এই গুরুত্বপূর্ণ পাসটি। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

[আরও পড়ুন: বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে ভারত, আরোগ্য সেতু অ্যাপের প্রশংসায় পঞ্চমুখ বিশ্ব ব্যাংক]

১. লকডাউন ই-পাসের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি খুলুন। মনে রাখবেন, প্রতিটি রাজ্যের জন্য কিছু আলাদা ওয়েবসাইট।
২. Apply Here অথবা আবেদন করা যাবে লেখা বোতামে ক্লিক করুন।
৩. আপনার কেন ই-পাসের প্রয়োজন, সেই সংক্রান্ত কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রশ্নপত্র এক-এক রাজ্যে এক-একরকম। যেমন মহারাষ্ট্রে ওয়েবসাইটে ই-পাসের জন্য ছবি-সহ পরিচয়পত্র, বিশ্বাসযোগ্য প্রতিষ্ঠানের নথিপত্র, মেডিক্যাল রিপোর্ট এবং কোম্পানির আইডি চাওয়া হচ্ছে।
৪. আবেদনপত্র ভরে সাবমিট ক্লিক করার পর আপনার দেওয়া তথ্য খতিয়ে দেখে স্থানীয় পুলিশ। তারপর একটি পাস ইস্যু করা হবে।
৫. আবেদনপত্র ভরতে সমস্যা হলে স্থানীয পুলিশের সাহায্য নিতে পারেন। পুলিশ আপনাকে একটি টোকেন আইডি দেবে। সেটি দেখালেই সাহায্য পাবেন।

এবার জেনে নিন কীভাবে দেখবেন ই-পাস পেতে আর কত সময় লাগবে?
আবেদনপত্র জমা দেওয়ার পরই আপনি একটি আইডি পাবেন। ই-পাসের ওয়েবসাইটে গিয়ে সেই আইডিটি টাইপ করলেই দেখে নিতে পারবেন আপনার ই-পাসের স্টেটাস। ই-পাস ইস্যু হয়ে গেলে রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে একটি মেসেজ পাবেন। ই-পাস ইস্যু হয়ে গেলে তার প্রিন্স আউট বের করে নিন। এবং রাস্তায় বেরলে অবশ্যই সেটি সঙ্গে রাখুন। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের বাসিন্দা হলে জেলা কিংবা শহরের সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে এ বিষয়ে পরামর্শ করুন।

[আরও পড়ুন: লকডাউনে প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না, মিম শেয়ার করে বার্তা কলকাতা পুলিশের]

তবে শুধু অনলাইনে নয়, দিল্লি সরকার হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমেও ই-পাস দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে। তার জন্য বেশ কিছু হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর চালু করা হয়েছে। কোনও ব্যক্তির ই-পাসের প্রয়োজন হলে তাঁকে নাম, ঠিকানা, ই-পাস চাওয়ার বিস্তারিত কারণ, সময়সীমা, পরিচয়পত্র ওই হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে পাঠিয়ে দিতে হবে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement