BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

ইন্টারনেট পরিষেবা বজায় রাখতে নয়া পদক্ষেপ, বন্ধ হতে পারে HD স্ট্রিমিং

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: March 23, 2020 5:18 pm|    Updated: March 23, 2020 6:05 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা সংক্রমণের প্রভাব কমাতে বেশিরভাগ অফিস বন্ধ করে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের নির্দেশ দেয় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। এই পরিস্থিতিতে বাড়িতে বসে কাজের ফাঁকে HD (High Defination) কোয়ালিটির ভিডিও দেখতে গিয়ে ঘাটতি হচ্ছে ইন্টারনেটের। তাই ইন্টারনেট পরিষেবা চালিয়ে যেতে ভারতে HD স্ট্রিমিং বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে পারে বিভিন্ন অ্যাপ।

করোনার আতঙ্কে বন্ধ নিত্যদিনের টেলিভিশন। ফলে বাড়িতে থাকা টেলিভিশন এখন প্রকৃতই বোকাবাক্স। তবে ঘরবন্দি হলেও সময় কাটাতে গিয়ে মোটেই চিন্তিত নন অফিস যাত্রীরা। এই সময় অনেকেই ঘরে বসে বিভিন্ন স্ট্রিমিং সার্ভিসে সিনেমা ও সিরিজ দেখে সময় কাটাচ্ছেন। আর তার জন্য মানুষের কাছে রয়েছে রকমারি বিকল্প পথ-Hotstar, Hichoi, Netflix, Prime Video, YouTube, Zee-5, Amazon, আরও কত কী।

[আরও পড়ুন:মুখ্যমন্ত্রী পদ নিয়ে দড়ি টানাটানি! গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জেরবার মধ্যপ্রদেশ বিজেপি]

তবে বাড়িতে বসেই অফিসের কাজ সামালানোর জন্য প্রয়োজন হচ্ছে স্ট্রং নেটওয়ার্কের।   তারওপরে  HD কোয়ালিটির সিনেমা ও সিরিজ দেখতে গেলে বিপুল পরিমাণ ব্যান্ডউইথেরও প্রয়োজন। একসঙ্গে এত মানুষকে পরিষেবা দিতে গিয়ে দেশের ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যহত হওয়ার উপক্রম। তাই আগেভাগেই লাগাম টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেলুলার অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া। একটি চিঠিতে জানানো হয়েছে, বিগত কয়েকদিন মানুষ ঘরে বসে থাকার কারণে স্ট্রিমিং সার্ভিসের উপর চাপ বাড়তে শুরু করেছে। হঠাৎ এই বিপুল পরিমাণে ইন্টারনেট ব্যবহারের কারণে পরিষেবার উপরে চাপ পড়ছে।  সার্ভিস প্রোভাইডারদের মতে, সকলকে একমত হয়ে স্ট্রিমিং সার্ভিস কোম্পানিগুলিকে সঠিক বিট রেট ঠিক করে নিতে হবে। ইন্টারনেট পরিষেবা চালিয়ে যেতে এই পদক্ষেপ নেওয়া আবশ্যিক হয়েছে। এই জন্য কোম্পানিগুলিকে হাই ডেফিনিশন স্ট্রিমিং-এর বদলে স্ট্যান্ডার্ড ডেফিনিশন(SD) স্ট্রিমিং-এর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ওয়েব সিরিজ বা সিনেমা দেখা ছাড়াও বিজ্ঞাপন ও পপ-আপের জন্য অতিরিক্ত ব্যান্ডউইথের প্রয়োজন হয়। প্রয়োজনে বিজ্ঞাপন দেখানো বন্ধ করার কথাও বিবেচনা করতে বলা হয়েছে কোম্পানিগুলিকে। ইতিমধ্যেই বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তে এই ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপেও ভাইরাস সংক্রমণ রুখতে মানুষ ঘরে বসে আছেন। সেখানেও ইন্টারনেট পরিষেবা চালিয়ে যেতে স্ট্রিমিং সার্ভিস কোম্পানিগুলি বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। ভারতও সেই পথেই হাঁটতে চলেছে।

[আরও পড়ুন:‘অনেকেই লকডাউনকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না’, ক্ষোভপ্রকাশ মোদির]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement