২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুব্রত বিশ্বাস:  ‘দেবী স্রোতস্বিনী ভগবতী গঙ্গে…’। সংস্কৃতের এই শ্লোক আউড়ে-ই গঙ্গায় ডুব দিয়ে মোক্ষলাভের পথ খুঁজতে ব্যস্ত রেল। আগস্ট মাসেই মানুষকে এমনই মুক্তির পথে নিয়ে যাচ্ছে রেল। ‘গঙ্গাস্নান যাত্রা’ নামের ট্রেন চালাচ্ছে রেল। আইআরসিটিসির উদ্যোগে পুণ্যতোয়া গঙ্গাকে ঘিরে যে পর্যটনস্থল সেগুলি দর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। দ্রষ্টব্য স্থানগুলি হরিদ্বার, হৃষীকেশ ও বারাণসী।

[আরও পড়ুন: চাপা উত্তেজনার মধ্যেই কাশ্মীরে যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ! আশঙ্কা বাড়ছে উপত্যকাবাসীর]

যাত্রা শুরু হবে ২৬ আগস্ট। উত্তর-পূর্ব ভারতের গুয়াহাটি থেকে যাত্রা শুরু। বঙ্গাইগাঁও সন্ধে ছ’টার সময় পুণ্যার্থীদের দিয়ে যাত্রা শুরু এই বিশেষ ট্রেনের। এরপর রাজ্যের সীমান্ত এলাকার নিউ কোচবিহার স্টেশন ছুঁয়ে,  নিউ জলপাইগুড়ি হয়ে ট্রেনটি চলে যাবে কাটিহার। সেখান থেকে ট্রেনটি যাবে হরিদ্বার। ২৯ আগস্ট হর-কি-পৌড়িতে গঙ্গা আরতি দেখে তীর্থক্ষেত্রে সময় কাটানোর পর সেখানেই রাত্রিযাপন। পরের দিন প্রাতঃরাশের পর হৃষীকেশ। সেখান থেকে লক্ষ্মণ মন্দির, লক্ষ্মণঝোলা, রামঝোলা দেখে বারাণসীর উদ্দেশে যাত্রা। ৩১ আগস্ট বারাণসী পৌঁছে ধর্মশালায় ওঠা। পরে বাবা বিশ্বনাথ দর্শন, গঙ্গা আরতি দেখে স্টেশনে ফিরে আসা।

[আরও পড়ুন: অমরনাথ যাত্রায় হামলার ছক কষেছিল জঙ্গি মাসুদ আজহারের ভাই! ফাঁস চাঞ্চল্যকর তথ্য]

আইআরসিটিসি এই ‘গঙ্গাস্নান যাত্রা’ কে পুরোপুরি প্যাকেজের মধ্যে ফেলেছে তীর্থযাত্রীদের বিশেষ সুবিধা দেওয়ার জন্য। এজন্য মাথাপিছু খরচ পড়বে ৮৫০৫ টাকা। কোনও কারণে টিকিট বাতিল করতে হলে এবং তা যদি যাত্রার ১৫ দিন আগে হয়, এক্ষেত্রে মাত্র ১০০ টাকা কেটে বাকি পুরো টাকাটাই ফেরত পাবেন যাত্রীরা। ৮ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে হলে ২৫ শতাংশ কাটা যাবে। ৪ থেকে ৭ দিনের মধ্যে হলে ৫০ শতাংশ কেটে নেবে উদ্যোক্তারা। টিকিট কাটার চার দিন পর বাতিল হলে কোনও টাকাই ফেরত পাবেন না যাত্রী। কাজেই ভারতীয় রেলমন্ত্রকের তরফে এমন লোভনীয় প্যাকেজ যে পর্যটকরা বেশ উপভোগ করতে পারবেন তা বলাই বাহুল্য। অপেক্ষা শুধু শুরু হওয়ার। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং