BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

এখনও সাড়া মেলেনি বিক্রমের, পাশে থাকার জন্য সকলকে ধন্যবাদ ইসরোর

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: September 18, 2019 8:53 am|    Updated: September 18, 2019 10:45 am

An Images

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: মঙ্গলবার রাতে টুইট করে চন্দ্রযান ২ মিশনে পাশে থাকার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানাল ইসরো। এই টুইটকে কেন্দ্র করেই শুরু হয়েছে গুঞ্জন। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, হয়তো আর কোনও আশা নেই বিক্রমের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের। বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পরই ইসরোর সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছিল নাসা। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জানিয়েছিল, চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমকে খুঁজতে ইসরোকে সাহায্য করবে তারা।

[আরও পড়ুন: নাসার মহাকাশচারীকে ফোন করে ল্যান্ডার বিক্রমের খোঁজ নিলেন ব্র্যাড পিট]

ইসরো জানিয়েছিল, বিক্রম চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ২.১ কিলোমিটার উচ্চতায় থাকাকালীন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। অরবিটার এবং ইসরোর গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায় ল্যান্ডার বিক্রমের। কিন্তু, বিশদ গবেষণার পর বলা হয়, চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে ল্যান্ডার। চন্দ্রপৃষ্ঠের ৪০০ মিটার দূর পর্যন্তও বিক্রমের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে সফল হয়েছিল ইসরো।

এরপর ইসরোর তরফে জানানো হয়, বিক্রমের সঙ্গে নতুন করে যোগাযোগের প্রয়াস অব্যাহত। সেপ্টেম্বরের ২০ থেকে ২১ তারিখ পর্যন্ত এই চেষ্টা চলবে। চন্দ্রপৃষ্ঠের যেদিকে বিক্রম রয়েছে, সেখানে সূর্যের আলো পড়লেই যোগাযোগের চেষ্টা করা হবে। বেঙ্গালুরুতে অবস্থিত ভারতীয় ডিপ স্পেস নেটওয়ার্কের (আইডিএসএন) মাধ্যমে বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের চেষ্টা করছে ইসরো। বেতার তরঙ্গের মাধ্যমে বিক্রমকে সিগন্যালও পাঠায় নাসা। জানানো হয়, চন্দ্রযান ২-এর অরবিটার স্পষ্টভাবেই সিগন্যাল গ্রহণ করেছে। কিন্তু একাধিকবার চেষ্টা করলেও ল্যান্ডারের তরফে কোনও সাড়া মেলেনি। এরপরই মঙ্গলবার টুইট করে চন্দ্রযান ২ মিশনে পাশে থাকার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানানো হয় ইসরোর তরফে। বিক্রমের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের চেষ্টা চলাকালীন ইসরোর এই টুইটে মনে করা হচ্ছে সব আশা শেষ। আর হয়তো কোনওভাবেই বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব নয়।

প্রসঙ্গত, বিক্রমের মুখ থুবড়ে পড়ার পর থেকেই নয়, চন্দ্রযান ওড়ার পর থেকেই ক্যানবেরা, স্পেনের মাদ্রিদ, আর ক্যালিফোর্নিয়ার গোল্ডস্টোন ডিপ স্পেস স্টেশনের ১২টি অ্যান্টেনা দফায় দফায় নজর রেখেছিল ইসরোর যানের উপর।

 

[আরও পড়ুন: ক্রমশ স্বাভাবিক হচ্ছে ওজোন স্তর, প্রতি দশকে উন্নতি হয়েছে ১-৩ শতাংশ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement