২৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগ কি স্রেফ ফিক্সিংয়ের উপর চলে? না হলে এভাবে একের পর এক ক্রিকেটারের নাম কেন ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িয়ে যাচ্ছে? এই প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট মহলজুড়ে। আগেই আটজনকে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের জন্য পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল। এবার সেখানে যুক্ত হল আর একজনের নাম। তিনি আর কেউ নন, অভিমন্যু মিঠুন। যিনি ভারতের হয়ে টেস্ট ও একদিনের ম্যাচ খেলেছেন। কেপিএলে আগে অনেকে ধরা পড়লেও মিঠুনের মতো বড় কোনও রাঘববোয়াল ক্রিকেটার এই টুর্নামেন্টে ম্যাচ গড়াপেটার জালে জড়াননি।

[আরও পড়ুন: এ কেমন স্টাইল! মুখের একদিকের দাড়ি-গোঁফ কামিয়ে ছবি পোস্ট করলেন ক্যালিস]

কেপিএলের শিবামোগা লায়ন্স দলের অধিনায়ক ছিলেন। তিনি যে ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে ছিলেন তা সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চের পক্ষ থেকে স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে। এমনকী জয়েন্ট কমিশনার অব পুলিশ সন্দীপ পাতিলও জানিয়ে দিয়েছেন তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শীঘ্রই ডেকে পাঠানো হয়েছে। ‘হ্যাঁ, ওকে আমরা শীঘ্রই যোগাযোগ করতে বলেছি। সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চের পক্ষ থেকে বেশ কিছু প্রশ্ন তাঁকে করা হবে। যথাযথ উত্তরের অপেক্ষায় আমরা আছি।’ বলেছেন সন্দীপ পাতিল।

যেহেতু জাতীয় দলের হয়ে তিনি খেলেছিলেন তাই ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকেও সবকিছু জানানো হয়েছে। ভারতের হয়ে মিঠুন চারটে টেস্ট ও পাঁচটা একদিনের ম্যাচ খেলেছিলেন। কী ধরনের প্রশ্ন করা হবে? তার জবাবে সিসিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘আমরা কিছু প্রশ্ন ইতিমধ্যে তৈরি করে ফেলেছি। বিশেষ করে গত কেপিএল ম্যাচের কিছু বিষয় নিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হবে।’ কিন্তু যাকে প্রশ্ন করা হবে তিনি এখন কর্ণাটকের হয়ে খেলে বেড়াচ্ছেন সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফি। শুধু তাই নয়, সুরাটে একটা টি-২০ টুর্নামেন্ট হয়েছে। সেখানেও খেলেছেন তিনি। ম্যাচ গড়াপেটা নিয়ে বিতর্কের মাঝেও সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিতে দুর্দান্ত খেলছেন। শুক্রবার হরিয়ানার বিরুদ্ধে সেমিফাইনালের ম্যাচে হ্যাট্রিক-সহ পাঁচ উইকেট নিয়েছেন অভিমুন্য। এর আগে টি-২০ ফরম্যাটের ক্রিকেটে চার বলে চারটি উইকেট নিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার পেসার মালিঙ্গা। আজ এক ওভারে পাঁচটি উইকেট নিয়ে সেই রেকর্ড ভাঙলেন মিঠুন। 

[আরও পড়ুন: ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ভারতে, জরিমানা দিতে হল বাংলাদেশি ক্রিকেটারকে]

গত জুলাই মাসে প্রথম কেপিএলের ম্যাচ ফিক্সিং নিয়ে ঝড় উঠে। সেই ঝড় ওঠার পর থেকে দেখা যাচ্ছে এই খেলার সঙ্গে যুক্ত অনেকেই ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গে জড়িয়ে। এমনকী বেলাগাভি প্যান্থার্স নামক দলের যিনি মালিক সেই আলি আসফাক তাহারাও জড়িয়ে রয়েছেন। গতকাল কর্ণাটক হাই কোর্ট তাহারার জামিনের আবেদনকে বাতিল করেছে। মিঠুন প্রথমে এই টুর্নামেন্টে খেলতেন মালনাদ গ্ল্যাডিয়েটর্সে। তারপর আসেন বিজাপুর বিলসে। সেখান থেকে যোগ দেন শিবামোগা লায়ন্সে। গত সপ্তাহে সিসিবি কর্ণাটক ক্রিকেট সংস্থাকে কেপিএল নিয়ে কিছু প্রশ্নপত্র পাঠিয়েছে। আসলে কর্ণাটক ক্রিকেট সংস্থা এই ব্যাপারে ক্রমশ বদনামের ভাগীদার হচ্ছে। তাই কেএসসিএ কেপিএল নিয়ে চিন্তায় পড়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং