৪ মাঘ  ১৪২৬  শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হায়দরাবাদের মতো ওয়াংখেড়েও সাক্ষী থাকল ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির দ্বৈত সত্ত্বার। প্রথমজন, ব্যাটসম্যান বিরাট। যিনি প্রমাণ করলেন ফরম্যাট যাই হোক না কেন। তাঁর হাতে ব্যাট থাকা মানেই দিনের শেষে নাস্তানাবুদ হতে হচ্ছে বোলারদের। মাঠ ছাড়তে হচ্ছে মাথা নিচু করে। এ দিনও যিনি উপহার দিলেন আর এক স্মরণীয় ইনিংস। করলেন ২৯ বলে ৭০। দ্বিতীয়জন, ব‌ন্য বিরাট। যিনি শুধু বলগুলো বাউন্ডারির ওপারেই পাঠালেন না। বরং ক্যারিবিয়ানদের আগ্রাসনের পালটা উপহার দিলেন আগ্রাসনই। প্রতিটা বিগ হিট করার পর যেমন বুক চাপড়ালেন। হাফসেঞ্চুরির পর ব্যাট তুলে ক্যামেরার দিকে ‘কাম অন’ বললেন। আবার ম্যাচ জেতার পরে হাত আকাশে ছুঁড়ে লাফালেনও।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিরাটের নামের পাশেই বসল সিরিজ সেরার তকমা। তবে তখন তিনি যেন নির্লিপ্ত। যাঁর মুখে বাড়তি উত্তেজনা নেই। বললেন, ‘‘ম্যাচের আগে আমরা যা প্ল্যান করেছিলাম সেটা কার্যকরী হয়েছে দেখে ভাল লাগছে। আমি ছন্দে ছিলাম। লোকেশকে (রাহুল) বলেছিলাম ওকে ব্যাট করে যেতে হবে।’’ ১১ ডিসেম্বর ২০১৯- এই তারিখটাই যেন কোহলির জীবনে ‘লাকি চার্ম’। দু’বছর আগে এই দিনেই তো অনুষ্কা শর্মার সঙ্গে বিয়ে করেছিলেন বিরাট। আর দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকীতে এমন একটা ইনিংস খেলার পিছনে অনুপ্রেরণা তাঁর স্ত্রী-ই মানছেন ভারত অধিনায়ক। নিজের ক্রিকেটীয় সত্ত্বা কয়েক মিনিটের জন্য দূরে রেখে যিনি বললেন, ‘‘এই ইনিংসটা আমার কাছে চিরজীবন খুব স্পেশ্যাল হয়ে থাকবে। আজ আমার দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকী। আর সেই দিনে এমন একটা স্পেশ্যাল ইনিংস আমার স্ত্রীকে দেওয়া আদর্শ উপহার।’’

[আরও পড়ুন: ব্যাটে-বলে দাপুটে ভারতের কাছে কুপোকাত ক্যারিবিয়ানরা, টি-২০ সিরিজ কোহলিদের]

পরিসংখ্যান অনুযায়ী টি-টোয়েন্টিতে প্রথমে ব্যাট করে ভারত অত বেশি সফল নয়। আজ অবশ্য ছবিটা ছিল উলটো। টস হেরে প্রথমেই ব্যাট করল ভারত। দিনের শেষে ছিনিয়ে নিল জয়। বিরাট বললেন, ‘‘প্রথমে ব্যােট করে জিতেছি ভেবে ভাল লাগছে। আমি এমন একজন ব্যাটসম্যান যে প্রতিটা ফরম্যাটেই দলের জন্য সাফল্য আনতে চাই। তবে আজকে রোহিত (শর্মা) আর লোকেশ এত ভাল শুরুটা করেছিল বলেই আমাদের সুবিধা হয়েছে।’’ বিরাটের কথাতে পরিষ্কার এই জয়ের পিছনে কারিগর তিনি একা নন। বরং লোকেশ রাহুল ও রোহিত শর্মারও তাতে সমান অবদান। রোহিত বললেন, ‘‘পিচ দেখে মনে হয়েছিল আজ বড় রান ঠিক উঠবেই। আর প্রথম ন’ওভারে ১০০ তোলার পর বড় টোটালে পৌঁছতেই হত। ২৪০ ডিফেন্ড করার পক্ষে যথেষ্ট। আমাদের আজ প্ল্যানটাই ছিল যে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে। আর সেটাই আমরা করেছি। ওয়াংখেড়ের পিচ এমনিতেই ব্যাটিংয়ের জন্য আদর্শ।’’

[আরও পড়ুন: দাম্পত্যের ২ বছর, বিবাহবার্ষিকীতে অনুষ্কার উদ্দেশে আবেগঘন পোস্ট বিরাটের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং