৫ মাঘ  ১৪২৬  রবিবার ১৯ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

এফসি গোয়া- ২ (মুর্তাদা ফল, কোরোমিনাস)

এটিকে- ১ (জবি জাস্টিন)

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পরপর দুই ম্যাচে জয়ের পর থামল এটিকের বিজয়রথ। গোয়ার কাছে হার মানলেন কোচ হাবাসের ছেলেরা। মাত্র ছ’মিনিটের ব্যবধানে তিনটি গোল গড়ে দেয় ম্যাচের ভাগ্য। এদিন গোয়া জিতল ২-১ গোলে। এই ম্যাচ জিতলে গোয়াকে টপকে ফের লিগের শীর্ষে চলে যেত কলকাতা। কিন্তু হেরে গোয়ার নিচে দুই নম্বরেই থাকল তারা। তবে এদিন কলকাতার প্রাপ্তি বলতে জবি জাস্টিনের গোল। ইস্টবেঙ্গল থেকে এটিকেতে সই করার পর ময়দানে কম ঝড়ঝাপটা ওঠেনি। বিতর্ক দূরে সরিয়ে গোল করে সমালোচকদের জবাব দিলেন জবি।

পরপর দুই ম্যাচ জিতে বেশ ফুরফুরে মেজাজে ছিল এটিকে। আগের ম্যাচে বেশ সহজ জয় পেয়েছিল কলকাতার ফ্র্যাঞ্চাইজি। দলে রাতারাতি হিরো হয়ে ওঠা রয় কৃষ্ণ এদিন গোল পাননি। বারবার তাঁকে আটকে দেন গোয়ার ডিফেন্ডাররা। প্রথমার্ধ গোলশূন্যই ছিল। দ্বিতীয়ার্ধে ৬০ মিনিটে গোল করে গোয়াকে এগিয়ে দেন মুর্তাদা। কিন্তু চার মিনিটের মধ্যে সমতা ফেরান কলকাতার জবি জাস্টিন। গোল করার পর ঈশ্বরের উদ্দেশে তাঁর অভিব্যক্তি বুঝিয়ে দিচ্ছিল, কতটা মরিয়া ছিলেন তিনি। সব হতাশার ধুলো যেন ঝেড়ে দিল এই গোল।

[আরও পড়ুন: অগ্নিগর্ভ গুয়াহাটিতে বাতিল একাধিক উড়ান, হোটেলবন্দি চেন্নাই-নর্থইস্ট দলের ফুটবলাররা]

কিন্তু এর ঠিক ২ মিনিট পর ব্যবধান বাড়ান গোয়ার কোরোমিনাস। আইএসএল কেরিয়ারের ৩৮তম গোলটি করেন এই ফুটবলার। মাত্র ছ’মিনিটের ব্যবধানে তিনটি গোল ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেয়। আর সমতা ফেরাতে পারেননি জবি, কৃষ্ণরা। যোগ্য দল হিসাবেই এদিন ম্যাচ জিতেছে গোয়া। বল পজেশন, নির্ভুল পাসিং সবেতেই এগিয়ে ছিল গোয়া। ঘরের মাঠের দর্শকদের সমর্থন ছিল ভাল খেলার জন্য বাড়তি পাওনা। সবমিলিয়ে জয়ের পরিবেশ উবে গিয়ে ফের মাটিতে এটিকে। ম্যাচ শেষে কোচ হাবাসের মেজাজ ছিল তা দেখেই বোঝা গিয়েছে কতটা হতাশ তিনি।

[আরও পড়ুন: জোড়া গোল কৃষ্ণের, নর্থইস্টকে মাটি ধরাল এটিকে]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং