৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হোমিওপ্যাথিই রুখবে করোনা, পুলিশদের হাতে আর্সেনিক অ্যালবাম থার্টি তুলে দিচ্ছেন সুব্রত পালরা

Published by: Sulaya Singha |    Posted: May 10, 2020 2:23 pm|    Updated: May 10, 2020 2:23 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: কেউ প্রচারের আলোয় আসতে চান। আবার অনেকে চান নীরবে-নিঃশব্দে নিজের কাজটুকু করে যেতে। যাকে বলে পর্দার আড়ালে। তারই যেন উদাহরণ পেশ করে চলেছেন সুব্রত পাল, সন্দীপ নন্দী, মেহতাব, প্রীতম কোটালরা।

প্রাক্তন ও বর্তমান ফুটবলাররা মিলে গড়ে তুলেছেন ‘প্লেয়ার্স ফর হিউম্যানিটি’। এই সংস্থার প্রধান লক্ষ্য হল, সমাজসেবামূলক কাজে নিজেদের নিয়োজিত করা। বেশিদিন আগে এই সংস্থা গড়ে ওঠেনি। কিন্তু কাজের পরিসরের শাখা-প্রশাখা অনেকটা ছড়িয়ে গিয়েছে। যেমন প্রাক্তন ফুটবলার সঞ্জয় পার্তে দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত। তাঁকে আর্থিক সাহায্য করা। প্রয়াত ফুটবলার ধনরাজনের পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে মোটা অর্থ। কিছুদিন আগে করোনা আক্রান্ত মানুষের
সাহায্যার্থে মুখ্যমন্ত্রীর তহবিলে অর্থ সাহায্য করেছে। এবার নিয়েছে আরও বড় উদ্যোগ। কী? রাজ্যের সমস্ত পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হবে হোমিওপ্যাথি ওষুধ আর্সেনিক অ্যালবাম থার্টি। উদ্দেশ্য একটাই, পুলিশদের সুস্থ রাখা।

[আরও পড়ুন: কতদিন পর অবসর নেবেন? লকডাউনের মধ্যেই জানিয়ে দিলেন রোহিত শর্মা]

“এখন সমাজকে সাহায্য করার প্রধান ভূমিকা নিচ্ছে পুলিশ। তারা যেভাবে রাতদিন পথে নেমে কাজ করছে তা এককথায় অবিশ্বাস্য। করোনায় অনেক জায়গায় ডাক্তাররাও নিজেদের সরিয়ে নিচ্ছেন। কিন্তু ব্যতিক্রমী পুলিশ। যারা সবসময় মানুষের পাশে থেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে। তাই আমরা ঠিক করেছি, রাজ্যের পুলিশদের হাতে তুলে দেব আর্সেনিক অ্যালবাম থার্টি। সকলেই জানে এই ওষুধ খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। সেই জন্য আমরা যতটা সম্ভব এই ওষুধ পুলিশদের হাতে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করব,” বলছিলেন জাতীয় দলের প্রাক্তন গোলকিপার সুব্রত পাল।

শুক্রবার বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের অফিসে গিয়ে ওই ওষুধ দিয়ে আসেন সুব্রতরা। বাকি জায়গাতেও এক-এক করে তুলে দেওয়া হবে। শুক্রবার প্রায় দশ হাজার পুলিশ কর্মীর হাতে এই ওষুধ তুলে দেওয়া হয়েছে। “আমাদের এই সংস্থায় কেউ বড় বা ছোট নেই। প্রত্যেকেই প্রত্যেকের তরে। সম মনোভাবাপন্ন ফুটবলাররা এই প্ল্যাটফর্মে থাকায় আমাদের অনেক সুবিধা হয়েছে। সুযোগ পেলে প্রত্যেকেই চলে আসে সাহায্য করতে।” বলছিলেন সুব্রত।

নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেডের গোলকিপার কোচ সন্দীপ নন্দী জানালেন, “ডেনসন ব্যাপারটা আসলে দেখে। তবে সকলেই আমরা রয়েছি। প্রায় ৩৮জন ফুটবলার এই ফোরামের অন্তর্ভুক্ত। তবে আমাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ন্যাশনাল হোমিওপ্যাথি ইনস্টিটিউশন। তারা এই ওষুধ দিচ্ছে। আমরা শুধু তুলে দিচ্ছি পুলিশের হাতে। এইভাবেই আমরা এগিয়ে যেতে চাই।”

[আরও পড়ুন: খবরের জের, লকডাউনে সমস্যায় পড়া বাংলার ফুটবলার অদ্রীজার পাশে দাঁড়াল রাজ্য সরকার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement