BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আইএসএলে নেওয়া হোক ইস্টবেঙ্গলকে, প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের চিঠি ঘিরে চূড়ান্ত নাটক

Published by: Sulaya Singha |    Posted: July 31, 2020 9:11 pm|    Updated: July 31, 2020 9:17 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: ফের চিঠি বিভ্রাট। সঙ্গে নাটকের পর নাটক। ফুটবল প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (FPAI), যাদের কাজ ফুটবলারদের সমস্যা সমাধানে তাঁদের পাশে দাঁড়ানো। অথচ আজ পর্যন্ত কোনও ক্লাবের জন্য যা করেনি, শুক্রবার এফপিএআই’র জেনারেল ম্যানেজার তাই করলেন। হঠাৎই এফএসডিএলকে (FSDL) কপি করে ফেডারেশন (AIFF) সচিব কুশল দাসকে চিঠি পাঠিয়ে বসলেন। যেখানে লেখা, ক্লাবের ইতিহাস এবং বিশাল সংখ্যক সমর্থকদের কথা ভেবে ইস্টবেঙ্গলকে যেন ইন্ডিয়ান সুপার লিগের (ISL) অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের তরফে এই চিঠি পড়ে অবাক হয়ে যান সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন কর্তারা। ফুটবলারদের অ্যাসোসিয়েশন কীভাবে একটি ক্লাবকে কোনও লিগে ঢোকানোর জন্য তদ্বির করতে পারে? বিশেষ করে এর আগে যখন কোনও ক্লাবের জন্যই কোনওদিন ফেডারেশনকে চিঠি দেয়নি এফপিএআই। সে মহামেডান হোক কিংবা ইউনাইটেড স্পোর্টস, কিংবা ডেম্পো বা সালগাঁওকর। তাহলে হঠাৎ করে ইস্টবেঙ্গলকে আইএসএল খেলানোর জন্য তদ্বির করতে গেলেন কেন তাঁরা?

[আরও পড়ুন: আসন্ন IPL-এর কমেন্ট্রি প্যানেলে তাঁকে ফেরানো হোক, বোর্ডের কাছে আরজি মঞ্জরেকরের]

প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন যে ইস্টবেঙ্গলের (East Bengal) জন্য তদ্বির করে ফেডারেশনে চিঠি দিয়েছে, তা কানে গিয়ে পৌঁছয় এফপিএআই-এর সভাপতি প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক রেনেডি সিংয়ের। অবাক হয়ে যান রেনেডিও। তিনি সভাপতি। অথচ এই চিঠির ব্যাপারে তিনিই কিছু জানেন না! সঙ্গে সঙ্গে জানতে চান, কার সঙ্গে আলোচনা করে এরকম চিঠি ফেডারেশনকে পাঠানো হয়েছে। যদিও সেই নাম জানা সম্ভব হয়নি। তারপর নিজেই ফেডারেশন সচিবকে দুঃখ প্রকাশ করে চিঠি দিয়ে বলেন, প্রথম চিঠির ক্ষেত্রে তিনি কোনওরকমভাবে অবগত ছিলেন না। এফপিএআই কোনও একটি ক্লাবের হয়ে তদ্বির করতে পারে না। এফএসডিএল এবং ফেডারেশনের সঙ্গে কথা বলে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ঠিক করুক, কোন লিগে খেলবে, আইএসএল না আই লিগ?

রেনেডি সিংয়ের তরফে এই চিঠি ফেডারেশনের সচিবের কাছে যাওয়ার পর পুরো ব্যাপারটাই থেমে যায়। কিন্তু আলোচনাটা চলতেই থাকে। এই চিঠি-চাপাটি না করে আইএসএল খেলার জন্য যা যোগ্যতামান ছিল, তা ঠিকভাবে পূরণ করলে, কাউকেই ধরাধরি করতে হয় না। এমনটাই মত ফুটবল মহলের একাংশের।

[আরও পড়ুন: বিরাট কোহলিকে গ্রেপ্তারের দাবি তুলে মামলা দায়ের মাদ্রাজ হাই কোর্টে]

এদিকে, কোভিড-১৯-এর কারণে ১ জুলাই ক্লাবের প্রতিষ্ঠা দিবসে তেমন কোনও অনুষ্ঠান হবে না। ঠিক ছিল দুই প্রাক্তন মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য ও সুভাষ ভৌমিককে বিশেষ সম্মানে সম্মানিত করা হবে। কিন্তু অনুমতি না পাওয়ায় সব অনুষ্ঠানই বাতিল করতে বাধ্য হয়েছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ। আপাতত ঠিক হয়েছে, সকালে পতাকা উত্তোলন করে প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠান শুরু হবে। ক্লাবের ফ্ল্যাগ উত্তোলন করবেন ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। তারপরেই হবে অ্যালমানা উদ্বোধন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement