৪ আষাঢ়  ১৪২৬  বুধবার ১৯ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

৪ আষাঢ়  ১৪২৬  বুধবার ১৯ জুন ২০১৯ 

BREAKING NEWS

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স: ১৪৯/৮ (২৯, ৪১*)
চেন্নাই সুপার কিংস: ১৪৮/৭ (ওয়াটসন-৮০)
এক রানে জয়ী মুম্বই ইন্ডিয়ান্স

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নরেন্দ্র মোদি নাকি রাহুল গান্ধী। ভোটযুদ্ধে কে শেষ হাসি হাসবেন? এই প্রশ্নে যখন সরগরম গোটা দেশ, তখন হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে ক্রিকেটে বুঁদ দর্শকরা অন্য এক প্রশ্নের উত্তর খুঁজছিলেন। মহেন্দ্র সিং ধোনি নাকি রোহিত শর্মা? ভোটযুদ্ধের মতোই বাইশ গজের এ লড়াইও যে সেয়ানে-সেয়ানে। তাই ভবিষ্যদ্বাণী করা ‘মুশকিল হি নহি, নামুমকিন হ্যায়।’ ম্যাচের শেষ পর্যন্ত ছিল টানটান উত্তেজনা। প্রতি মুহূর্তে অ্যাড্রিনালিন ক্ষরণ বাড়ছিল ক্রিকেটপ্রেমীদের। মু্ম্বই ডাগআউটের বসে আঙুলের প্রায় অর্ধেক নখই দাঁত দিয়ে কেটে ফেলেছিলেন শচীন তেণ্ডুলকর। গ্যালারিতে অনবরত প্রার্থনা করে চলেছিলেন সাক্ষী ধোনি। ম্যাচের শেষ বলে যবনিকা পতন ঘটল দীর্ঘ প্রায় দেড় মাসের কুরুক্ষেত্রের। আর লড়াই শেষে আরও একবার আইপিএল খেতাব নিজের নামে করল মুম্বই। চতুর্থবার ট্রফি ঘরে তুলে টুর্নামেন্টের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে নিজের নাম খোদাই করলেন রোহিত শর্মা।

[আরও পড়ুন: বিশ্বজয় থেকে মাফিয়া যোগ, মারাদোনার তথ্যচিত্রের ট্রেলার নিয়ে উত্তেজনা তুঙ্গে]

চলতি আইপিএলে প্লে অফ মিলিয়ে তিনবারের সাক্ষাতে তিনবারই মুম্বইয়ের কাছে মাথা নত হয়েছিল ধোনিদের। রোহিতদের সঙ্গে চূড়ান্ত লড়াইয়ের অতীত পরিসংখ্যানও নেহাত সুখকর ছিল না চেন্নাইয়ের। ছবিটা পালটালো না ফাইনালেও। আরও একবার পরিসংখ্যানকে সত্যি প্রমাণ করে মুম্বই বুঝিয়ে দিল, তারাই সেরা। দু’রানে ধোনির রান আউট হয়ে ফিরে যাওয়াটাকে যখন মুম্বইয়ের সৌভাগ্যে ফেরা হিসেবে বর্ণনা করছিলেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা, ঠিক তখনই তেড়ে ফুঁড়ে উঠলেন ওয়াটসন। ১৬ তম ওভারে মারমুখি ওয়াটসনের ক্যাচ ফেলে ফের বিপাকে পড়ে মুম্বই। কিন্তু শেষমেশ তাঁকে রান আউট করেই বাজিমাত হল।

CSK-MI

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মুম্বই অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তবে চেন্নাইয়ের সামনে বড় রানের লক্ষ্য গড়তে ব্যর্থ তাঁরা। যদিও এই রানই জয়ের জন্য যথেষ্ট বলে প্রমাণিত হল শেষমেশ। ১৫ রানেই আউট হয়ে যান রোহিত। আরেক ওপেনার কুইন্টন ডি কক ফেরেন ২৯ রানে। কিন্তু শার্দুল ঠাকুর (২), দীপক চাহার (৩) এবং ইমরান তাহিরের ঝোড়ো বোলিংয়ে উড়ে যায় মুম্বইয়ের মিডল অর্ডার। যদিও ঘুরে দাঁড়ান পোলার্ড (৪১*)। তবে ম্যাচ জেতানোর যাবতীয় দায়িত্ব পড়ে মুম্বইয়ের বোলারদের কাঁধে। যে কাজে বুমরাহ (২) ও চাহার (১) অনেকটাই সফল। ওয়াটসন ছাড়া কেউই ক্রিজে টিকতে পারেননি। লাসিথ মালিঙ্গা একটি ওভার খারাপ করলেও শেষ ওভারেই সবটা পুষিয়ে দিলেন।

[আরও পড়ুন: মাতৃদিবসে আবেগঘন পোস্ট শচীনের, মাকে বিশেষ শুভেচ্ছা জানালেন যুবরাজ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং