১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পি ভি সিন্ধুকে বিয়ে করতে চান ৭০ বছরের বৃদ্ধ! রাজি না হলে অপহরণের হুমকি

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 17, 2019 5:38 pm|    Updated: September 17, 2019 5:38 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এই মুহূর্তে যদি ভারতের সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত মহিলাদের তালিকা তৈরি করা হয়, তাহলে সন্দেহাতীত ভাবে প্রথম সারিতে নাম থাকবে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন শাটলার পি ভি সিন্ধুর। ব্যাডমিন্টন কোর্টে তাঁর যেমন সুনাম রয়েছে, তেমনই তাঁর রূপ নিয়েও চর্চা কম হয় না। এ হেন তারকাকে বিয়ে করতে চেয়ে আজব বায়নাক্কা শুরু করলেন বছর ৭০-এর এক বৃদ্ধ। শুধু তাই নয়, সিন্ধুকে বিয়ে করার দাবিতে জেলাশাসকের কাছে একটি হলফনামাও জমা দিয়েছেন তিনি। হলফনামায় তাঁর দাবি, সিন্ধুর সঙ্গে তাঁর বিয়ের ব্যবস্থা করতে হবে খোদ প্রশাসনকেই। না হলে তিনি ব্যাডমিন্টন তারকাকে অপহরণ করে তাঁর সঙ্গে শুভ পরিণয় সম্পন্ন করবেন।

[আরও পড়ুন: পদ্মবিভূষণের জন্য মেরি কমের নাম প্রস্তাব ক্রীড়া মন্ত্রকের, পদ্মভূষণের লড়াইয়ে সিন্ধু]

৭০ বছরের এই বৃদ্ধের নাম মালায়সামি। তামিলনাড়ুর রঙ্গনাথপুরম জেলায় থাকেন তিনি। তাঁর শখ ব্যাডমিন্টন তারকা পি ভি সিন্ধুকেই বিয়ে করবেন তিনি। হোক না বয়স ৭০ বছর, তা বলে কী প্রেম পাবে না! রঙ্গনাথপুরমের জেলাশাসক প্রতি সপ্তাহে জনতার দরবারে এসে তাদের অভাব অভিযোগের কথা শোনেন। গত সপ্তাহেও তেমনই এক জনতার দরবারের আয়োজন করেন তিনি। সেই জনতার দরবারে এসেই জেলাশাসকের কাছে পি ভি সিন্ধুকে বিয়ে করার দাবিতে একটি আবেদনপত্র দাখিল করেন তিনি। মজার কথা, সেই আবেদনপত্রে আবার নিজেকে ১৬ বছর বয়সী কিশোর হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন ওই বৃদ্ধ।

[আরও পড়ুন: ৬ বছর পর জ্ঞান ফিরল প্রাক্তন ফরমুলা ওয়ান চ্যাম্পিয়ন শ্যুমাখারের!]

মালয়সামি জেলাশাসকের দরবারে এসেছিলেন নিজের এবং সিন্ধুর একটি ছবি নিয়ে। জেলাশাসককে জমা দেওয়া আবেদনপত্রে তিনি লেখেন, সিন্ধুর কেরিয়ার গ্রাফ তিনি খুব ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। হায়দরাবাদি টেনিস তারকাকে তাঁর মনে ধরেছে। এবং তাঁকেই জীবনসঙ্গী বানাতে চান। ওই আবেদনপত্র তিনি জানিয়েছেন, “আমি এখনও ১৬ বছরের কিশোরের মতোই। আমার জন্ম ২০০৪ সালের মার্চ মাসে।” সিন্ধুর সঙ্গে যদি তাঁর বিয়ের ব্যবস্থা না করা হয়, তাহলে তিনি টেনিস তারকাকে অপহরণ করে তাঁকে বিয়ে করবেন বলে হুমকিও দিয়েছেন ৭০ বছরের মালয়সামি। যদিও, তাঁর এই হুমকিকে গুরুতর বলে মনে করছে না প্রশাসন। পুরো ব্যপারটাকে নেহাত রসিকতার ছলেই নেওয়া হয়েছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement