২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

১১৩ বছর বয়সে যুদ্ধজয়, করোনাকে হারিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ স্পেনের সবচেয়ে বয়স্ক মহিলা

Published by: Bishakha Pal |    Posted: May 13, 2020 12:11 pm|    Updated: May 13, 2020 12:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গোটা পৃথিবী করোনায় কাবু। প্রতি মুহূর্তে মিলছে মত্যু সংবাদ। এমন পরিস্থিতিতে স্পেনের ঘটল এক মিব়্যাকেল। করোনা থেকে বেঁচে ফিরলেন দেশের সবচেয়ে বয়জ্যেষ্ঠ মহিলা। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তিনি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে আইসোলেশনে ছিলেন। সম্প্রতি সুস্থ হয়ে উঠেছেন তিনি। তাঁর সুস্থ হওয়ার খবরে আশার আলো দেখছেন আক্রান্তরা।

মারিয়া ব্রানিয়াস নামে এই মহিলার বয়স ১১৩ বছর। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তাঁর জন্ম। এপ্রিল মাসে গোড়ার দিকে ওলট শহরের বাড়িতে থাকাকালীন সংক্রামিত হয়েছিলেন তিনি। গত ২০ বছর ধরে সেখানেই রয়েছেন মারিয়া। শ্বাসকষ্ট শুরু হওয়ায় নিজেকে ঘরের মধ্যেই আইসোলেট করে নেন তিনি। এরপর লালারস পরীক্ষায় তাঁর শরীরের করোনা ভাইরাসের সন্ধান মেলে। বাড়িতেই চলছিল তাঁর চিকিৎসা। যদিও পরিবারের মতে তাঁর উপর করোনা অতিরিক্ত প্রভাব বিস্তার করেনি। তাহলে তাঁকে বাঁচানো যেত না। কিন্তু ১১৩ বছরের এক বৃদ্ধার জন্য তো মাইল্ড করোনাও প্রাণঘাতী! শুধুমাত্র মনের জোরেই এই বিপদ মারিয়া কাটিয়ে উঠেছেন বলে জানিয়েছে তাঁর পরিবার। গত সপ্তাহের মারিয়ার লালারস পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, মারিয়া এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। তিনি সবার সঙ্গে কথা বলছেন।

[ আরও পড়ুন: হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ঝলসে গেলেন ভেন্টিলেটরে থাকা পাঁচ করোনা রোগী, শুরু তদন্ত ]

স্পেনের এই প্রবীণ মহিলার সম্পর্কে সাম্প্রতিক বছরে স্প্যানিশ গণমাধ্যমে বেশ কয়েকটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি ১৯০৭ সালের ৪ মার্চ সান ফ্রান্সিসকোতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা উত্তর স্পেনের সাংবাদিক ছিলেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় মারিয়া তাঁর পরিবারের সঙ্গে স্পেনে চলে আসেন। স্প্যানিশ ফ্লু মহামারির সময় তিনি স্পেনেই ছিলেন। সেটিও কাটিয়ে ওঠেন তিনি। এবারও করোনা মহামারি থেকে বেঁচে ফিরলেন মারিয়া। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে স্পেন এখন পর্যন্ত মহামারিতে সবচেয়ে ২৭ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই প্রবীণ ও সেইসব ব্যক্তি যাঁদের রোগগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে মারিয়ার করোনা থেকে বেঁচে ফেরা এক আশার ইঙ্গিত দেয়।

[ আরও পড়ুন: ‘চিকিৎসার মাধ্যমে কমানো যাচ্ছে করোনার ভয়াবহতা’, আশার কথা শোনাল WHO ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement