BREAKING NEWS

১০ কার্তিক  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

চলে গেলেন পাকিস্তানের ‘পরমাণু বোমার জনক’, খ্যাতির সঙ্গে বিতর্কও ছিল তাঁর সঙ্গী

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 10, 2021 7:44 pm|    Updated: October 10, 2021 8:11 pm

Father of Pakistan’s nuclear bomb AQ Khan passes away। Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রয়াত পাকিস্তানের (Pakistan) ‘পরমাণু বোমার (Nuclear Bomb) জনক’ আবদুল কাদির খান (AQ Khan)। দীর্ঘদিন ধরেই অসুখে ভুগছিলেন তিনি। গত আগস্টে করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। সেই অসুখ থেকে সেরে উঠলেও শেষ পর্যন্ত করোনাজনিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াতেই রবিবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন। মৃত্যুর সময় তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫।

প্রবীণ বিজ্ঞানীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পাকিস্তানের পারমাণবিক শক্তিধর রাষ্ট্র করে তোলার পিছনে কাদির খানের অবদান ছিল বিরাট। এদিন ইমরানের পোস্টেও উঠেছে সেই প্রসঙ্গ। তিনি লেখেন, ”আবদুল কাদির খানের মৃত্যুর খবরে গভীরভাবে মর্মাহত। আমাদের পারমাণবিক শক্তিশালী হয়ে ওঠার পিছনে তাঁর তাৎপর্যপূর্ণ অবদানের জন্য সারা দেশ তাঁকে ভালবাসত। পাকিস্তানের মানুষের কাছে তিনি একজন জাতীয় আইকন।”

[আরও পড়ুন: রাশিয়ায় ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা, মৃত অন্তত ১৬]

অবিভক্ত ভারতের ভোপালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন তিনি। দেশভাগের পরে পাকিস্তানে চলে আসেন পরিবারের সঙ্গে। পরবর্তী সময়ে হয়ে ওঠেন দেশের এক উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব। তবে এহেন আবদুল কাদির খানের জীবন ঘিরেও রয়েছে বিতর্ক। ইমরান তাঁকে ‘জাতীয় নায়ক’ বলে দাবি করলেও অতীতে ইরান, লিবিয়া ও উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু প্রযুক্তির ফর্মুলা পাচার করার অভিযোগও উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। সেজন্য গ্রেপ্তারও হতে হয়েছিল।

পরে ক্ষমাও চান প্রবীণ বিজ্ঞানী। তৎকালীন পাক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশারফের নির্দেশে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হলেও পরবর্তী কয়েক বছর নজরবন্দি হয়েই ছিলেন আবদুল কাদির খান। গত কয়েকদিন ধরেই শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন তিনি। রবিবার সকালে শ্বাসকষ্ট আরও বাড়ে। এরপরই মৃত্যু হয় তাঁর।

[আরও পড়ুন: সেনা প্রত্যাহারের পর এই প্রথম তালিবানের সঙ্গে বৈঠকে আমেরিকা, দোহায় মুখোমুখি দুই পক্ষ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement