BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

ছদ্মবেশে ফুটবল মাঠে ঢুকে গ্রেপ্তার ইরানের তরুণী, শাস্তির ভয়ে আত্মহত্যা

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: September 12, 2019 1:42 pm|    Updated: September 12, 2019 1:42 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সময় এগিয়েছে। দেশও অগ্রসর হয়েছে বহু ক্ষেত্রে। কিন্তু নারীর ভাগ্য যে তিমিরে ছিল, সেই তিমিরেই রয়ে গিয়েছে আজও। পর্দার আড়ালে এখনও নিজের ইচ্ছে দমন করে রাখতে হয় তাঁদের। সকলে অবশ্য এই অবদমনের চাপ মেনে নিতে নারাজ। যেমন শাহর খোদায়ারি। বছর তিরিশের এই তরুণী নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ফুটবল দেখতে গিয়েছিলেন স্টেডিয়ামে। তারপর? গ্রেপ্তার হয়ে কড়া শাস্তি পেতে হবে, এই আশঙ্কায় নিজেই নিজেকে শেষ করে দিলেন তিনি। তাঁর এই মর্মান্তিক পরিণতিতে দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড়।

[আরও পড়ুন: হালে পানি না পেয়ে এবার কাশ্মীর নিয়ে ‘জলসা’র ডাক ইমরানের]

শাহর খোদায়ারি। ছোটবেলা থেকেই ফুটবলের প্রতি আকৃষ্ট। তবে আরও অনেক কিছুর মতো ইরানে মেয়েদের ফুটবল মাঠে যাওয়া নিষিদ্ধ। আটের দশকে একেবারে আইন করে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মাঠের লড়াই যে বড্ড টানে শাহরিকে। মাঠের উত্তেজনা বাড়িতে বসে প্রশমন করা সম্ভব নয় তাঁর পক্ষে। তাই গত বছর লুকিয়েচুরিয়ে, ছদ্মবেশ ধরে শাহর ঢুকে পড়েছিলেন স্টেডিয়ামে। পুরুষ সেজে স্টেডিয়ামে ঢুকলেও, শেষরক্ষা হয়নি। নিরাপত্তা রক্ষীদের চোখ এড়াতে পারেননি তিনি। ধরা পড়ে গিয়েছিলেন। সে যাত্রা বেঁচেও গিয়েছিলেন শাহরি।

বিপদ হল দিন কয়েক আগে। প্রিয় টিম এস্তেঘলালের ম্যাচ দেখতে একইভাবে শাহর পুরুষের ছদ্মবেশে ঢুকে পড়েছিলেন স্টেডিয়ামে। তখনও ধরা পড়ে যান তিনি। হাজতে ছিলেন। তাঁর এই আশঙ্কা বাড়তে থাকে যে বিচার হলে হয়ত তাঁকে গুরুতর শাস্তির মুখে পড়তে হবে। এই মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে আদালত চত্বরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেন শাহর। খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়তেই নিন্দার ঝড় ওঠে  সর্বত্র। পুরুষ, মহিলা নির্বিশেষে রীতিমতো পোস্টার হাতে প্রতিবাদে নেমে পড়েন অনেকেই। চাপের মুখে পড়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে ইরান প্রশাসন।

iran-stadium
শাহরি মৃত্যুর প্রতিবাদে পোস্টার

এমনকী শাহর খোদায়ারির মৃত্যুতে ইরানের অভ্যন্তরীণ আইনের তীব্র প্রতিবাদে শামিল আন্তর্জাতিক ফুটবলপ্রেমীদের একটা বড় অংশ। তাঁরা ফিফার কাছে আবেদন জানিয়েছেন, যাতে আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতা থেকে ইরানকে আপাতত বাদ দেওয়া হয়। প্রতিবাদে শামিল সেদেশের বিখ্যাত ফুটবলার আলি কারিমি। ইনস্টাগ্রামে নিজের সাড়ে ৪ মিলিয়ন ফলোয়ারের কাছে তিনি প্রতিবাদের আহ্বান জানিয়েছেন।
দুঃখপ্রকাশ করেছে শাহরের প্রিয় ফুটবল টিম এস্তেঘলাল। ফিফা নিজেও ফুটবল মাঠে মহিলাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ইরান সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে। শাহরের মৃত্যুই দেশে নারী স্বাধীনতার ছবিটা বদলে দেবে বলে মনে করছে সমাজকর্মীদের একাংশ।

[আরও পড়ুন: রেফারি নিগ্রহে এক ম্যাচ সাসপেন্ড ডিকা-মেহতাব, লিগের দৌড়ে চাপে ইস্টবেঙ্গল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement