BREAKING NEWS

১৪ অগ্রহায়ণ  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ১ ডিসেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘তেলের দাম বাড়ায় আমাদের কোমর ভেঙে যাচ্ছে’, বৈঠকে আমেরিকাকে বার্তা জয়শংকরের

Published by: Anwesha Adhikary |    Posted: September 28, 2022 10:32 am|    Updated: September 28, 2022 1:47 pm

Jaishankar met Blinken, expressed concern on rising price of oil | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লাগাতার তেলের দাম বাড়তে থাকায় ভারতের কোমর ভেঙে যাচ্ছে, মার্কিন বিদেশসচিব অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেনের (Anthony Blinken) সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে সাফ জানালেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর (S Jaishankar)। বিশ্বের বাজারে যেভাবে তেলের দাম বাড়ছে, তার ফলে ভারতের মতো আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া দেশগুলির সমস্যা বেড়ে যাচ্ছে। আমেরিকায় বেশ কয়েকজন মন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন জয়শংকর। মঙ্গলবার ব্লিঙ্কেনের সঙ্গে বৈঠক করে আমেরিকা সফরের সূচনা করলেন তিনি।

বৈঠকে জয়শংকর বলেছেন, “তেলের দাম বাড়া নিয়ে আমরা যথেষ্ট চিন্তিত। লাগাতার তেলের দাম বাড়ছে বলে আমাদের কোমর ভেঙে যাচ্ছে। এটা খুবই দুশ্চিন্তার বিষয়।” প্রসঙ্গত, বারবার তেলের (Russian Crude Oil) দাম নিয়ে সরব হয়েছেন জয়শংকর। তিনি বলেছেন, বিদেশমন্ত্রী হিসেবে তাঁর কর্তব্য দেশের মানুষের আর্থিক পরিস্থিতির কথা মনে রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া। ব্লিঙ্কেনের সঙ্গে বৈঠকে সেই বিষয়টি আবারও উত্থাপন করেছেন জয়শংকর। তিনি বলেন, ভারতের মানুষের মাথাপিছু যা আয়, তার তুলনায় আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম অনেক বেশি। তাই কম দামে যদি রুশ তেল পাওয়া যায়, নির্দ্বিধায় তা আমদানি করবে ভারত।

[আরও পড়ুন: বিপ্লবে মিশল ইরান-তুরস্ক, হিজাব কাণ্ডের বিরোধিতায় মঞ্চে চুল কাটলেন গায়িকা]

রাশিয়া থেকে কম দামে তেল পাওয়া গেলেও যেন সেই তেল কেউ না কেনে, সেরকম বিকল্প ব্যবস্থা তৈরি করতে চেষ্টা করছে আমেরিকা। কিন্তু সেক্ষেত্রে জি-৭-সহ রুশ বিরোধী দেশগুলি থেকেও আপত্তি উঠছে। কমদামে রুশ তেল কেনা নিয়ে ভারতকেও বেশ কয়েকবার তোপ দেগেছে আমেরিকা। এখনও জো বাইডেন প্রশাসন চাইছে, রুশ তেল কেনা থেকে সরে আসুক ভারত।

অন্যদিকে, পাকিস্তানকে এফ-১৬ (F-16) বিমান রক্ষণাবেক্ষণ করতে সামরিক অনুদান দিয়েছে আমেরিকা। এহেন পদক্ষেপে যথেষ্ট ক্ষুব্ধ হয়েছে ভারত। নিজেদের কূটনৈতিক ব্যর্থতা বুঝতে পেরে বারবার আমেরিকার তরফে সাফাই দেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবারও একই কথা শোনা গেল ব্লিঙ্কেনের মুখে। তিনি বলেছেন, জঙ্গি দমন করতেই এফ-১৬ যুদ্ধবিমান ব্যবহার করবে পাকিস্তান। কিন্তু সেই কথা একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয় ভারতের সামরিক মহলে। কারণ, অন্য দেশের উপর হামলা চালানোর কারণেই মূলত ব্যবহার করা হয় এফ-১৬। রাশিয়া থেকে তেল আমদানি করার কারণে ভারতকে চাপে রাখতেই পাকিস্তানকে সামরিক ভাবে শক্তিশালী করে তুলতে চাইছে আমেরিকা, এমনটাও মনে করছেন বিষেশজ্ঞরা।

[আরও পড়ুন:ইটালির মসনদে বসতে চলেছেন ‘মুসোলিনিপন্থী’ মেলোনি, শুভেচ্ছা জানালেন মোদি]

 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে