BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

লকডাউন ভাঙলেই গুলি করে মারো, প্রশাসনকে নির্দেশ ফিলিপিন্সের রাষ্ট্রপতির

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 2, 2020 6:35 pm|    Updated: April 2, 2020 6:35 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা ভাইরাস (Corona Virus) -এর সংক্রমণ রুখতে অন্য দেশগুলির মতো ফিলিপিন্সেও লকডাউন চলছে। কেউ যদি সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে সেই লকডাউন ভাঙে তাকে গুলি করে মারার নির্দেশ দিলেন ফিলিপিন্সের রাষ্ট্রপতি রডরিগো দুতার্তে। সেনা ও পুলিশ কর্মীদের এই নির্দেশ মেনে চলতে বলেন। বুধবার রাতে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় দেশবাসীকে হুমকি তিনি বলেন, ভয়াবহ এই দুর্যোগের সময় সরকারের নির্দেশ মেনে চলুন। আমি সবাইকে সতর্ক করে বলছি, এখন বাড়ি থেকে বের হবেন না। তাহলে এই মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে কাউকে রক্ষা করে যাবে না। এমনকী এই সময় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের কোনও ক্ষতি করবেন না। কারণ, এই সময়ে ওদের মতো সত্যিকারের বন্ধুদের ক্ষতি করা হল গুরুতর অপরাধ। আমি পুলিশ ও সেনাকে নির্দেশ দিচ্ছি কেউ যদি সমস্যা তৈরি করে। নিজের ও অন্যদের জীবনে ঝুঁকি তৈরি করে তাহলে তাদের গুলি করে মারো।

করোনার প্রকোপে এখনও পর্যন্ত ৯৬ জনের মৃত্যু হয়েছে ফিলিপিন্সে। আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২ হাজার ৩০০ জনের বেশি। করোনার সংক্রমণ রুখতে অন্য দেশগুলির মতো সেখানেও জারি হয়েছে লকডাউন। দুই সপ্তাহ ধরে চলা লকডাউনের জেরে প্রচুর মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। সরকারের তরফে তাঁদের জন্য ত্রাণের ব্যবস্থা করা হলেও অনেক জায়গাতেই সেগুলি ঠিকঠাক বন্টন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। এর জেরে রাজধানী ম্যানিলার একটি বসতির বাসিন্দারা সম্প্রতি হাইওয়েতে অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাছিলেন। বিষয়টি নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তুমুল গন্ডগোলও হয়। এই ঘটনায় ২০ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এই বিষয়টিতেই প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়েছেন রডরিগো দুতার্তে। আর তাই লকডাউন ভঙ্গকারীদের গুলি করে মারতে বলেছেন।

[আরও পড়ুন: লকডাউনে গরিবদের জন্য আর্থিক প্যাকেজ, মোদির প্রশংশায় পঞ্চমুখ WHO ]

তাঁর এই নির্দেশ পরেই দেশব্যাপী প্রবল বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। ম্যানিলার রাস্তায় বিক্ষোভ দেখানো ওই বসতির এক বাসিন্দার কথায়, দু সপ্তাহ ধরে লকডাউনের ফলে আমাদের কাছে থাকা টাকা ও খাবার শেষ হয়ে গিয়েছে। সরকারের তরফে দেওয়া খাবারও পাচ্ছি না। এর জেরে তো করোনায় মরার আগে না খেতে পেয়েই মারা যাব। তাই ত্রাণের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলাম। কিন্তু, সরকার আমাদের উপর অত্যাচার করল। এখনও আবার গুলি করে মারারও হুমকি দিচ্ছে।

[আরও পড়ুন: ‘চিন মৃত্যুর সঠিক পরিসংখ্যান দিচ্ছে না’, ফের জিনপিং প্রশাসনকে তুলোধোনা ট্রাম্পের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement